পাতা:বিষাদ-সিন্ধু এজিদ্‌-বধ পর্ব.pdf/৩৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


$.0 ந் এজিদৃ-বধ পৰ্ব্ব । আসিবামাত্রই এজিদের আজ্ঞা প্রতিপালন করিতে হইল। পঞ্চপীর কথা শুনিলাম। উত্তরও কবিলাম, সঙ্গে সঙ্গে ছুরিকাও দেখাইলাম। মহাপাপীর হৃদয় কম্পিত হইল । মুখের ভাবে বুঝিলাম, নিজ প্রাণের ভয় অপেক্ষ জয়নাবের প্রাণের ভয়ই যেন তাহার অধিক । কি জানি জয়নাব আত্মহত্য করে, তবেই ত সৰ্ব্বনাশ । যাহাই হউক, ঈশ্বব রূপায় পাপাত্মার মুনে যাহাই উদয় হউক, সে সময় বক্ষ পাইলাম। কিন্তু বন্দীখানায় আসিতে হইল। এই সেই বন্দগৃহ । জয়নাব, এজীদের বন্দীখানায় বন্দিনী । প্ৰভু পবিজন এজিদের বন্দীখানায় এই হতভাগিনীর সদিী আমার কি আর উপায় আছে । আমার পাপের কি ইতি আছে ন উদ্ধার আছে ? দয়াময় ! তুমিই অবলার আশ্রয়, তুমিষ্ট নিরাশ্রযার উভয় কালেৰ আশ্রয়। করুণাময়! ক্টোমাকেই সৰ্ব্বসার মনে করিয়া এই রাজসি হাসন পদতলে দলিত করিয়াছি । বাজভোগ, পাটরাণীর মুখসম্ভোগ, ঘৃণার চক্ষে তুচ্ছ কবিয়াছি। তুমিই বল, তুমিই সম্বল। তুমিই অন্তকালের সহায় ।” পাঠক । ঐ শুনুন, ডঙ্ক তুরী ভেরীর বাদ্য শুনিতেছেন? জয়ধ্বনীর দিকে মন দিয়াছেন ? o “জয় জয়নাল আবিদিম ? শুনিলেন। দামস্কের নবীন মহারাজ পরিবার পরিজনকে উদ্ধার করিতে আসিড়েছেণ। পূজনীয়৷ জননী, মাননীয় সহোদরা এবং অপব গুরুজনকে বন্দীখান হইতে উদ্ধার করিতে আসিতেছেন । বেশী দূবে নয়। প্রায় বন্দীখানার নিরটে । জয়নাবের কথা এখনও শেষ হয় নাই, আবার শুনুন। এদিকে মুহাবাজ আসিতে থাকুন। জয়নাৰ বলিতেছেন, আমারই জন্যই গ্রন্থ পরিবারের এই দুর্দশ । এজিদের প্রস্তাবে সম্মত হইলে, মদীনার সিংহাসন কখনই শূন্ত হইত না । জায়দার হস্তে মহাবিষ উঠিত না।" সখীনাও সদ্য বৈধব্য যন্ত্রণ ভোগ করিত না । পবিত্র মস্তক বর্ষ গ্রে বিদ্ধ হইয়া শীমার হস্তে দামস্কে আসিত না । মহাভক্ত আজরও স্বহস্তে সাত পুত্ৰ বধ করিত না। কত চক্ষে দেখিয়াছি, কত কাণে শুনিয়াছি। হায় f হায় । সকল অনিষ্ঠের, সকল ছঃখের মূলই এই হতভগিনী । শুনিয়াছি, শীমারের প্রাণ গিয়াছে । "মরিয়াণের দেহ খণ্ডিত