প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:বিষাদ-সিন্ধু এজিদ্‌-বধ পর্ব.pdf/৪২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Woły এজিদ-বধ পৰ্ব্ব । t তেজোময় ছায়। দেখিয়। চমকিয়া পিছে হটিলেন । এবং ভয়ে চক্ষু বন্ধ করি লেন । পুনরায় গভীর নিনাদে শব্দ হইল। "

  • হানিফ ক্ষান্ত হও, এজিদ তোমার বধ্য নহে ।” মোহাম্মদ হানিফ পুনৰায় চক্ষু মেলিয়৷ তাকাইতেই দেখিলেন, মহা অগ্নিময় মহাতেজ অসংখ্য শিখা বিস্তারে সহস্র অশনিপাত সদৃশ বিকট শব্দ করিয়া নিকুঞ্জ মধ্যস্থ'কুপ মধ্যে মহাবেগে প্রবেশ করিল। ঐজিদেব আৰ্ত্তনাদে উদ্যানস্থ পার্থীকুল বিকটকণ্ঠে 'ভয়ে ডাকিয় উঠিল । বাসা ছাড়িয়া,শাখ ছাডিয়া, দিগ্বিদিক উডিয়া বেড়াইতে আরম্ভ কৰিল। ভূকম্পনে তরু লতা সকল ভয়ে কুঁাপিতে লাগিল। গাজীরহমান, মসহাব কাঙ্ক, উনর- “ আলী, আক্কেলঙ্গালী প্রভৃতি উপস্থিত ঘটনা দেখিয়া, নিৰ্ব্বাকে হানিযাব পশ্চাদে দণ্ডাষনান বঙ্গিলেন। মোহাম্মদ হানিকের ভাব ভিন্ন। মুখাকৃতি বিকৃতি অথচ ক্রোধে পরিপূর্ণ। হৃদয় হিংসানলে দীভূত। স্থিৰ নেত্রে উৰ্দ্ধমুখ হইয়। দণ্ডবিমান । তববার মুষ্ঠ দক্ষিণ হস্তে । পৃষ্ঠ বক্ষে সংলগ্ন । অগ্রভাগ বামঙ্গন্ধে স্থাপিত। আবার দৈববাণী ।
  • হানিফ দুঃখ কবিও না । এজিদ কাহাবও বধ্য নহে ৷ ”বোজ কোয়ামত ( শেষ দিন) পৰ্য্যন্ত এই কুপে এই জলন্ত হুতাসনে জলিতে থাকিবে, পুড়িতে থাকিবে, অথচ প্রাথবিয়োগ’হইবে न ।’

মোহাম্মদ হানিফ চমকিয়া উঠিলেন । তরবারীর অগ্রভাগ স্কন্ধ হইতে মৃত্তিকায় স্পী" রিল। অশ্ব বল্লা বাম হস্তে ধরিয়া বলিতে লাগিলেন। “এজিদ অামাব বধ্য নহে। কাহারও কণ্য নহে। মোর কি করিব ? ইচ্ছ। কবিলে এক তীরে নরাধমের কলিযু পার করিতাম । হৃদয়েব রক্তধারে বর্ষার অগ্রভাগ যে রঞ্জিত করিতে না পারিতাম, তাহাও সহে । এই তরবারী দ্বারাই নারকীর দেহ দুই খণ্ডে বিভক্ত হইত। তাহা করি নাই। চক্ষে চক্ষে সম্মুখে সম্মুখে ন যুৰিয়া,অস্ত্রের চাকচিক্যন দেখাইয়া কাইঞ্জি थjभमश्शंद्र कब्रि नाई। ইহজীৱন কাহার পৃষ্ট্রে আঘাত করি নাই। এজিদ পৃষ্ঠ দেখাইল। আর অস্ত্রের আঘাত কি ? জীবন্ত ধরিব, সকলের সম্মুখে ধরিয়া আনিব, একত্র একসঙ্গে মনের আগুণ নিবারণ করিব,fতাহা হইল না । মনের আশ মিটিল না । এত পরিশ্রম ববিয়াও, স্কৃতকাৰ্য্য হইতে পারিলাম না। ੇਖਕ কি কুরি । , ,