প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:বিষাদ-সিন্ধু এজিদ্‌-বধ পর্ব.pdf/৪৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


80 এজি-বধ পৰ্ব্ব । W. নিতান্তই অসম্ভব, কিন্তু হইয়াছে তাহাই। ভয় এবং রোষ । বীর-হৃদয় \Er{{ डौड़ হইবাব নহে। তবে ধে কিঞ্চিং কঁাপিয়া ছিল, দৈববাণী বলিয়া, প্ৰভু হোমেনের জ্যোতিঃস্ময় পবিত্র ছায় দেখিয়া, নির্ভয় হৃদয়ে ভয়ের স্থান হইল नी । श्टिङ्गांशै। বোধেরই জয় । প্রমাণ—অশ্বে আরোহণ, সঙ্গোরে কশাঘাত । কানন দ্বাব পার হইয়া, এজিদের গুপ্তপুরী প্রবেশদ্বার আবরিত ত্র বেষ্টিত নিকুঞ্জ প্রতি একবাৰ চক্ষু ফিরাষ্টয়া দেখিলেন । দুৰ্গন্ধময় ধুমরাশী হু হু কবিয়া আকাশে উঠিতেছে, বাতাসে মিশিতেছে। রাজপুরা পশ্চt; বাখিরা দামস্ক নগরের পথে চলিলেন । যে তাহার সম্মুথে পড়িতে লাগিল, তাহারই জীবন শৈব হইল। বিন অপবাধে হানিফার অস্ত্রে জীবলীলা সাঙ্গ হইয়া খণ্ডিত দেহ ধুলায় গড়াগডি যাইতে লাগিল। জয়নাল ভক্ত প্রজাগণ, এজিদের পরিণাম দশা দেখিতে আনন্দ উৎসাহে রাজপুীব দিকে দলে দলে আসিতেছেন। ইনিফার বোষাগ্নিতে পড়িয এক পদও অগ্রসব হইতে পারিল না । আপন প্রতিপালক রক্ষক হস্তে প্রাণ বিসর্জন কবিতে লাগিল । এজিদ সহ মোহাম্মদ হানিফ নগরে প্রবেশ করিলেই নগর প্রবেশ দ্বারে গ্রহরি বসিয়াছিল, প্রহবিগণ মোয়ুষ্মদ হানিফকে আসিতে দেখিয়াই সতর্ক ও সাবধান সহিত বঙলাকার্থে তৎপব হইল। নিকটে আসিতেই প্রস্থরিগণ मां५ी নোয়াইয়া" অভিবাদন কলি? মস্তক উত্তোলন করিয়। দ্বিতীয়বার সম্ভাষণের আর অবসর হইল না। প্রভু অস্ত্রে প্রহরিগণ—মস্তক দেহু হইতে ভিন্ন হইয়। সিংহদ্বারে গড়াইয়া পড়িল । দৈনিক কাৰ্য্য সমাধা করিয়৷ দীন হীন দরিদ্র ব্যক্তি সন্ধ্যাগমে নগরে অসিতেছে, পথিক পথপ্রান্তে ক্লান্ত হইয়৷ বিশ্রাম হেতু লোকালয়ে আদিতেছে, ত্রস্তে পদবিক্ষেপ করিতেছে-ক্ষত কথাই মনে উঠিতেছে। চক্ষের পদকে কথা ফুলাইয় গেল, হানিফার অন্ত্রে বিনামেঘে বজ্রাঘাত সদৃশ জীবলীলা পথিমধ্যেই गोर्क इश्त । গাজীরহমান, মাহুবি কাঙ্ক প্রভৃতি যথাসাধ্য ত্রস্তে আসিয়াও মোহম্মদ হানিফর্কে নগরে পাইলেন না । সিংহদ্বারে আসিয়া যাহ। দেখিবার দৈখিলেন। প্রাস্তরে আসিয়া স্পষ্টতঃ দেখিতে পাইনে আবাৰ ভূপতি যাহাকে , সম্মুখে পাইতেছেন, বিনা বাক্যব্যয়ে তাহার জীবন শেষ করিয়া। ক্রমেই