পাতা:বীথিকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৪৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বীথিকা আমার মাটির ঘরখান। আরম্ভ হয়েছে গড়া, মজুর জুটেছে তার নানা । ধীরে ধীরে ভিৎ তোলে গেথে রৌদ্রে পিঠ পেতে । মাঝে মাঝে স্থদুরে রেলের বঁশি বাজে ; প্রহর চলিয়া যায় বেলা পড়ে আসে, ঢং ঢং ঘণ্টাধ্বনি জেগে ওঠে দিগন্ত আকাশে । আমি দেখি চেয়ে, ঈষৎ সঙ্কোচে ভাবি,—এ কিশোরী মেয়ে পল্লীকোণে যে ঘরের তরে করিয়াছে প্রস্ফুটিত দেহে ও অন্তরে নারীর সহজ শক্তি আত্মনিবেদনপর শুশ্রষার স্নিগ্ধস্থধাভরা, আমি তা’রে লাগিয়েছি কেনা-কাজে করিতে মজুরা, মূল্যে যার অসম্মান সেই শক্তি করি চুরি পয়সার দিয়ে সিধকাঠি । সাওতাল মেয়ে ওই ঝুড়ি ভ’রে নিয়ে আসে মাটি ॥ 8 ম}ঘ, ১৩৪১ শাস্তিনিকেতন రి రి