পাতা:বুয়র ইতিহাস - প্রিয়নাথ মুখোপাধ্যায়.pdf/৯২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

চতুর্থ পরিচ্ছেদ।

৮৯


শতাধিক জুলুসৈন্য হত করিয়া, বহুকষ্টে তাহাদিগের পশ্চাদ্‌ ভাগের পথ পরিষ্কার করিয়া লইলেন। এই যুদ্ধে ১০ জন শ্বেতাঙ্গ হত হইয়াছিলেন। দলপতি উইস্‌ (Uys) এবং তাঁহার পুত্রও সেই সময় হত হন। দলস্থিত এক ব্যক্তিকে জুলুসৈন্যের হস্ত হইতে উদ্ধার করিবার সময়, দলপতি অশ্বচ্যুত হইয়া পতিত হন ও একজন জুলুকর্ত্তৃক হত হইবার সময়, তাঁহার ১৫ বৎসর বয়স্ক পুত্র, পিতার অবস্থা দেখিতে পাইয়া, তাঁহার উদ্ধারের নিমিত্ত দ্রুতগামী অশ্বে আরোহণ করিয়া, তাঁহার নিকট গিয়া উপস্থিত হন; কিন্তু তাহাতে বিফলমনোরথ হইয়া, পিতার সহিত ধরাশায়ী হন।

 এই ঘটনার কয়েক দিবস পরে, ১৭ জন ইংরাজ ঐ প্রদেশীয় ১৫০০ শত কৃষ্ণকায় শিক্ষিত সৈন্যের সহিত, নেটাল বন্দর হইতে তাঁহাদিগের সাহায্যার্থ আসিয়া উপস্থিত হন। তাঁহারা টুগেলা নদীর দক্ষিণে একস্থানে একদল জুলুসৈন্যের চিহ্ন দেখিতে পান। জুলুসৈন্যের চিহ্ন দেখিয়া, তাঁহাদিগের অনুমান হয়, যে, তাঁহাদিগের ভয়ে ভীত হইয়া উহারা পলায়ন করিতেছে। আরও দেখিতে পান, যে, যে স্থানে তাহারা অবস্থিতি করিতেছিল, সেই স্থানে কতকগুলি ঢাল ও যুদ্ধাস্ত্র ফেলিয়া গিয়াছে। কোন স্থানে কেহ আহার করিতে বসিয়াছিল, সম্পূর্ণরূপে আহার করিবার সাবকাশ পায় নাই; অর্দ্ধেক আহারীয় সেই স্থানে পড়িয়া রহিয়াছে। কেহ রন্ধন করিতেছিল, রন্ধন ছাড়িয়া পলায়ন করিয়াছে; যে সকল দ্রব্য রন্ধন করিতেছিল, তাহা এখন পর্য্যন্ত অগ্নির উপরে রহিয়াছে। এই অবস্থা দেখিয়া, তাহারা যে দিকে