প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:বৌ-ঠাকুরাণীর হাট-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/১৪০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Ꮌ8Ꮜ বৌ-ঠাকুবাণীব তাট না।” প্রত্যহ মনে কবেন, কাল বলিব , কিন্তু সে কাল আব কিছুতেই আসিতে চায না । অবশেষে একদিন দৃঢ় প্রতিজ্ঞ কবিলেন। বিভ। আসিল, বিভাকে বলিলেন, “বিভা, তুই আব এখানে থাকিস্নে। তুই ন। গেলে আমি কিছুতেই শান্তি পাইতেছি না। প্রতিদিন সন্ধ্য বেলাষ এই কাব্যগুহেব অন্ধকারে ,ক আসিয। আমাকে লেন বলে, বিভাব বিপদ কাছে আসিতেছে । বিভ, অমাব কাছ হইতে তোব শীঘ্ৰ পালাইয। য। আমি শনি গ্রহ, অমাব দেখা পাইলেই চাবিদিক হইতে দেশেব বিপদ চুটিয আসে। তুষ্ট শ্বশুব বাডি যা । মাঝে মাঝে যদি সংবাদ পাট, তাহা হইলেই আমি স্বপে থাকিব ।” বিভী চুপ কবিয বহিল। উদযাদিত্য মুখ নল কবিয়া বিভাব সেই মুখখানি অনেকক্ষণ বরিয। দেপিতে লাগিলেন । তাহণব দুই চক্ষ দিয ঝবঝব কবিঘ। অশ্র পড়িতে লাগিল। উদযাদিত্য লঝিলেন, “আমি কাবাগাব কষ্টতে ন মুক্ত হইলে বিষ্ণু কিছুতেই আমাকে ছাডিয। যাইবে না, কী কবিয মুক্ত হইতে পাবিব ।” ষড়বিংশ পরিচ্ছেদ বামচন্দ্র বায ভাবিলেন, বিভা যে চন্দ্রদ্বীপে আসিল না, সে কেবল প্রতাপাদিতোব শাসনে ৪ উদমাদিতোব মন্ত্রণায । বিভ। যে নিজেব ইচ্ছাষ আসিল না, তাহ। মনে কবিলে তাহাব আত্ম-গৌৰবে অত্যন্ত অtখাত লাগে । তিনি ভাবিলেন, প্রতপাদিত্য আমাকে অপমান কবিতে চাহে, অতএব সে কখনো বিভাকে আমাক কাছে পাঠাইবে না। কিন্তু এ অপমান আমিই তাহাকে ফিবাইয়া দিই না কেন । আমিই তাহাকে এক পত্র লিখি না কেন যে, তোমাব মেয়েকে আমি পরিত্যাগ কবিগাম,তাহকে যেন অব চন্দ্ৰৰীপে পাঠানো না হয়। এইরূপ সাতপাচ