প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:বৌ-ঠাকুরাণীর হাট-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/১৪৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


〉8や বৌ-ঠাকুরাণীর হাট আপনাকে মলিন দেখিয়া আমাদের মনে আর মুখ নাই ! একটি বয়েদ আছে—“রাত্রি বলে আমি কেহই নই, আমি যাহাকে মাথায় করিয়৷ রাখিয়াছি সেই চাদ, তাহারি সহিত আমি একত্রে হাসি, একত্রে মান হইয়া যাই ।”—মহারাজ, আমরাই বা কে, আপনি না হাসিলে আমাদেব হাসিবার ক্ষমতা কী ? আমাদের আর সুখ নাই, জনাব !” বসন্তরায় ব্যগ্র হইয়া কহিলেন, “সে কী কথা সাহেব ? আমার ত অসুখ কিছুই নাই,—আমি নিজেকে দেখিয়া নিজে হাসি—নিজেব আনন্দে নিজে থাকি—আমার অস্থখ কী খ৷ সাহেব ?” খা সাহেব—“মহারাজ এখন আপনার আর তেমন গান বাদ্য শুন। যায় না।” বসন্তরায় সহসা ঈষৎ গম্ভীর হইয়। কহিলেন, “আমার গান শুনিবে সাহেব ?” “আমিই শুধু রইল্প বাকি। যা ছিল তা গেল চলে, রইল যা তা কেবল ফাকি।” খা সাহেব—“আপনি আর সে সেতার বাজান কই ? আপনার সে সেতার কোথায় ?” বসন্তরায় ঈষৎ হাসিয়া কহিলেন—“সে সেতার কি নাই, তাহা নয়। সেতার আছে, শুধু তাহার তার ছিড়িয়া গেছে, তাহাতে আর স্বর মেলে না।" বলিয়া আঞ্জবনের দিকে চাহিয়া মাথায় হাত বুলাইতে লাগিলেন। কিয়ৎক্ষণ পরে বসন্তরায় বলিয়া উঠিলেন, খ সাহেব একটা গান গাওঁ নভ-একটা গান গাও, গাও—“তাজবে তাজ নওবে নও।” খী সাহেব গান ধরিলেন – "তাজৰে তাজ নওবে নও।” দেখিতে দেখিতে বসন্তরায় মাতিয়া উঠিলেন—আর বসিয়া থাকিতে