প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:বৌ-ঠাকুরাণীর হাট-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/১৬৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


×ჯ8 বৌ-ঠাকুরাণীর হাট ফেলে, গোলমাল করিয়া এ ওর ঘাড়ের উপর গিয়া পড়ে । আগুন অব নেবে না । এদিকে যখন এইরূপে গোলযোগ চলিতেছে, তখন সীতারামের দলস্ত লোকের উদয়াদিত্যের শূন্ত কারাগারে আগুন লাগাতীয়া দিল। একে একে জানালা দরজা, কড়ি, বরগা, চৌকাঠ, কাঠের বেড়া প্রভৃতিতে আগুন ধরাইয়াছিল। সেই কারাগুহে যে, কোন সূত্রে আগুন ধরিতে পারে, ইহা সকলের স্বপ্নেরও অগোচর, সুতরাং সে দিকে আর কাহারে। মনোযোগ পড়ে নাই । সীতারাম ফিরিয়া আসিয়া দেখিল, আগুন বেশ রীতিমত ধরিয়াছে। কতকগুলা হাড় মড়ার মাথা, ও উদয়াদিত্যের তলোয়ারটি সীতারাম কোন প্রকারে উদয়াদিত্যের সেক্ট ঘবের মধ্যে ফেলিয়া দিল । এদিকে যাহার প্রহরী-শালার আগুন নিভাইতেছিল, কারাগারের দিক হইতে সহসা তাহারা এক চীৎকার শুনিতে পাইল । সকলে চমকিয়৷ একবাক্যে বলিয়া উঠিল—“ও কি রে ” একজন ছুটিয়া আসিয়৷ কহিল—“ওরে, যুবরাজের ঘরে আগুন ধরিয়াছে।” প্রহরীদের রক্ত জল হইয়া গেল, দয়াল সিংহের মাথা ঘুরিয়া গেল। কলসী হাত হইতে পডিয়া গেল, জিনিষপত্র ভূমিতে ফেলিয়া দিল। এমন সময়ে আর এক জন সেইদিক হইতে ছটিয়া আসিয়া কহিল –"কারাগুহের মধ্য হইতে যুবরাজ চীংকার করিতেছেন শুনা গেল ”—তাহার কথা শেষ না হইতে হইতেই সীতারাম ছুটিয়া আসিয়া কহিল—“ওরে তোরা শীঘ্র আয়! যুবরাজের ঘরের ছাদ ভাঙিয়া পড়িয়াছে,আর ত তাহার সাড়া পাওয়া যাইতেছেন।” যুবরাষ্ট্রের কারাগৃহের দিকে সকলে ছুটিল। গিয়া দেখিল গৃহ ভাঙিয়। পড়িয়াছে—চারিদিকে আগুন—ঘরে প্রবেশ করিবার উপায় নাই । তখন সেইখানে দাড়াইয়া পরস্পর পরস্পরের প্রতি দোষারোপ করিতে লাগিল । কাহার অসুবিধানতায় এই ঘটনাটি ঘটিল, সকলেই তাহা স্থির করিতে