প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:বৌ-ঠাকুরাণীর হাট-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৭০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


속a বৌ-ঠাকুরাণীর হাট যুবরাজ কহিলেন, “অন্তঃপুরের দ্বাব খুলিতেছি।” প্রহরী কহিল,—“কাল মহালজেব কাছে কী জবাব দিব ?” উদয়াদিত্য কহিলেন, “বলিস, যুবরাজ বলপূর্বক আমাদিগকে পরাভূত করিয়া অস্তঃপুরেব দ্বার খুলিয়াছেন। তাহ। হইলে খালাস পাইবি ।” উদয়াদিত্য অস্তঃপুর হইতে বাহির হইয়। যে ঘরে জামাতার লোক জন থাকে সেই ঘরে উপস্থিত হইলেন । সে ঘরে কেবল রামমোহন ও রমাই ভাণ্ড ঘুমাইতেছিল, আর বাকি সকলে আহারাদি কবিয় নৌকায় গিয়াছে । যুবরাজ ধীরে ধীরে রামমোহনকে স্পর্শ কবিলেন । সে চমকিয় লাফাইয়া উঠিল। বিক্ষিত হইয়া কহিল—“এ কী যুবরাজ ?” 'बूदग्नाश কহিলেন “বাহিরে এসো।” রামমোহন বাহিরে আসিল । রামমোহনকে যুবরাজ সমস্ত কহিলেন । " তখন রামমোহন মাথায় চাদর বাধিয়া লাঠি বাগাইয় ধরিল, ক্রোধে স্ফীত হইয়। ককিল, “দেখিব লছমন সদার কত বড় লোক । মুবরাজ আমাদের মহারাজকে একবার কেবল আমার কাছে আনিয়া দিন । আমি একা এই লাঠি লইয়। একশ জন লোক ভাগাইতে পারি ” যুবরাজ কহিলেন, “সে কথা আমি মানি, কিন্তু যশোহরের রাজপ্রাসাদে একশত অপেক্ষ অনেক অধিক লোক আছে ! তুমি বলপূৰ্ব্বক কিছু করিতে পরিবে না। অন্য কোনো উপায় দেখিতে হইবে।” রামমোহন কহিল, ”আচ্ছা, মহারাজকে একবার আমার কাচে জাকুন, আমার পাশে তিনি দাড়াইলে আমি নিশ্চিন্তু হইয়া উপায় ভাবিতে পারি।” তখন অস্তঃপুরে গিয়া উদয়াদিত্য রামচন্দ্রকে আহ্বান করিলেন। তিনি এবং তাহার সঙ্গে সকলেই আসিল । রামচন্দ্র রামমোহনকে দেখিয়াই ক্রোধে অভিভূত হইয়া ৰহিলন,— "তোকে আমি এখনি ছাড়াইয় দিলাম—তুই দূর হইয় যা তুই পুরানো