প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:বৌ-ঠাকুরাণীর হাট-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৭১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বৌ-ঠাকুরাণীর হাট צר লোক, তোকে আর অধিক কী শাস্তি দিব—যদি এ যাত্রা বাচিয়া যাই, , তবে তোর মুখ আর আমি দেখিব না।” বলিতে বলিতে রামচন্দ্রের কণ্ঠরোধ হইয়া আসিল । তিনি যথার্থই রামমোহনকে ভাল বাসিতেন, শিশুকাল হইতে রামমোহন র্তাহাকে পালন করিয়া আসিতেছে। রামমোহন ষোড়হাত করিয়া কহিল “তুমি আমাকে ছাড়াইবার কে মহারাজ ? আমার এ চাকরী ভগবান দিয়াছেন। যে দিন যমের তলব পড়িবে, সে দিন ভগবান আমার এ চাকরি ছাড়াইবেন । তুমি আমাকে রাখো না রাখো আমি তোমার চাকর।” বলিয়া সে রামচন্দ্রকে আগলাইয়া দাড়াইল । ,x * উদয়াদিত্য কহিলেন—“রামমোহন, কী উপায় করিলে?” রামমোহন কহিল, “আপনার শ্ৰীচরণশীৰ্ব্বাদে এই লাঠিই উপায়। আর মা কালীর চরণ ভরসা ।” (2 উদ্বয়াদিত্য ঘাড় নাডিয়৷ *fچral="-"e উপায় কোনো কাজের नग्न ! আচ্ছ, রামমোহন তোমাদের নৌকা কোন দিকে আছে ?” রামমোহন কহিল, “রাজবাটির দক্ষিণ পাশ্বের খালে ।” উদয়াদিত্য কহিলেন, “চলে একবার ছাদে যাই ।” রামমোহনের মাথায় হঠাৎ একটা উপায় উদ্ভাবিত হইল—সে কহিল, “ই, ঠিক কথা, সেই খানে চলুন।" সকলে প্রাসাদের ছাদে উঠিলেন। ছাদ হইতে প্রায় ৭• হাত নীচে খাল। সেইখালে রামচন্দ্রের চৌষট্টি দাড়ের নৌকা ভাসিতেছে। রামমোহন কহিল, রামচন্দ্র রায়কে পিঠে বঁধিয়া লইয়া সে সেই খানে বাপাইয়া পড়িবে। ". . বলম্বরায় তাড়াতাড়ি শশব্যস্ত হইয়া রামমোহনকে ধরিয়া বলিয়া উঠিলেন-", "ন, ন, সে কি হয়? রামমোহন, তুমি অমন অসম্ভব কাজ করিতে বাইও না ।”