পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড) - সুলভ বিশ্বভারতী.pdf/১৪১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরিশেষ শ্যামল দাক্ষিণ্যে ভরা সহজ আতিথ্যে বসুন্ধরা যেথা স্নিগ্ধ শান্তিময়, যেথা তার অফুরান মাধুৰ্যসঞ্চয় ze ce বিচিত্ৰ বিলাস আনে রূপে রসে গানে ; বিশ্বের প্রাঙ্গণে আজি ছুটি হােক মোর, ছিন্ন করে দাও কর্মন্ডোর । উচ্ছঙ্খল সমীরণ যে কুসুম এনেছে উড়ায়ে সহজে ধুলায়, পাখির কুলায় দিনে দিনে ভরি উঠে যে সহজ গানে, আলোকের ছোওয়া লেগে সবুজের তন্মুরার তানে ; এই বিশ্বসত্তার পরাশ, স্থলে জলে তলে তলে এই গৃঢ় প্রাণের হরষ তুলি লব অন্তরে অন্তরেসর্বদেহে, রক্তস্রোতে, চোখের দৃষ্টিতে, কণ্ঠস্বরে, জাগরণে, ধোঁয়ানে, তন্দ্ৰায়, এ জন্মের গোধূলির ধূসর প্রহরে শেষবার ভরিব হৃদয় মন দেহ দূর করি সব কর্ম, সব তর্ক, সকল সন্দেহ, সব খ্যাতি, সকল দুরাশা, বলে যাব, “আমি যাই, রেখে যাই মোর ভালোবাসা ।” [শান্তিনিকেতন] ২৩ বৈশাখ ১৩৩৮ পান্থ শুধায়ো না মোরে তুমি মুক্তি কোথা, মুক্তি করে কই, আমি তো সাধক নই, আমি গুরু নাই । আমি কবি, আছি ধরণীর অতি কাছাকাছি, এ পারের খেয়ার ঘাটায় । সম্মুখে প্ৰাণের নদী জোয়ার-ভাটায় নিত্য বহে নিয়ে ছায়া আলো, মন্দ ভালো, ভেসে-যাওয়া কত কী যে, ভুলে-যাওয়া কত রাশি রাশি লাভক্ষতি কান্নাহাসি R6ł