পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড) - সুলভ বিশ্বভারতী.pdf/১৪৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরিশেষ ওই যে ছাতিম গাছের মতোই আছি সহজ প্ৰাণের আবেগ নিয়ে মাটির কাছাকাছি, ওরা যেমন এই পাতার কাপন, যেমন শ্যামলতা, তেমনি জাগে ছন্দে আমার আজকে দিনের সামান্য এই কথা । না থাক খ্যাতি, না থাক কীর্তিভার, পুঞ্জীভূত অনেক বোঝা অনেক দুরাশার— আজ আমি যে বেঁচেছিলেম। সবার মাঝে মিলে সবার প্রাণে সেই বারতা রইল। আমার গানে । [শান্তিনিকেতন] Y s GKR > ISo Sobr বালক বালক বয়স ছিল যখন, ছাদের কোণের ঘরে নিঝুম দুইপহরে দ্বারের পরে হেলিয়ে মাথা মেঝে মাদুর পাতা, একা একা কাটত রোদের বেলানা মেনেছি পড়ার শাসন, না করেছি। খেলা । দূর আকাশে ডেকে যেত চিল, সিসুগাছের ডালপালা সব বাতাসে ঝিলমিল । তপ্ত তৃষায় চঞ্চু করি ফাক প্ৰাচীর-’পরে ক্ষণে ক্ষণে বসত এসে কাক । চড়ুই পাখির আনাগোনা মুখর কলভিাষা— ঘরের মধ্যে কড়ির কোণে ছিল তাদের বাসা । ফেরিওয়ালার ডাক শোনা যায় গলির ওপর থেকে দূরের ছাদে ঘুড়ি ওড়ায় সে কে । কখন মাঝে-মাঝে ঘড়িওয়ালা কোন বাড়িতে ঘণ্টাধ্বনি বাজে । সামনে বিরাট অজানিত, সামনে দৃষ্টি-পেরিয়ে-যাওয়া দূর বাজাত কোন ঘর-ভোলানো সুর । আকাশ-পাওয়া উদাসী মন সদাই ছিল জাগি । অকারণের ভালোলাগা অকারণের ব্যথায় মিলে গাথত স্বপন নাইকো গোড়া আগা । সাথিহীনের সাথি মনে হত দেখতে পেতেম দিগন্তে নীল আসন ছিল পাতি । সত্তরে আজ পা দিয়েছি আয়ুশেষের কুলে অন্তরে আজ জানলা দিলেম খুলে । তেমনি আবার বালকদিনের মতো চোখ মেলে মোর সুদূর-পানে বিনা কাজে প্রহর হল গত । SVV