পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড) - সুলভ বিশ্বভারতী.pdf/১৫৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


S 8 SR রবীন্দ্র-রচনাবলী এড়িয়ে-চলা জলধারার হাস্যমুখর কলকলোচ্ছাস, পুজায়-স্তব্ধ শরৎপ্রাতের প্রশান্ত নিশ্বাস, তন্দ্ৰাবিহীন চিরন্তনের শান্তিবাণী নিশীথ-অন্ধকারে, ফাগুনরাতির স্পর্শমায়ায় অরণ্যতল পুষ্পপরোমাঞ্চিত, কোন অদৃশ্য সুচিরবাঞ্ছিত। বনবীথির ছায়াটিরে vo 5.gs. মমরিয়া কইল যে-সব কথা, তারি প্রতিফবনিভরা দু-একটা চৌপদী আমার সসংকোচে পড়ে গেলেম ত্বরা । পড়া আমার শেষ হল যেই, ক্ষণেক নীরব থেকে নন্দগোপাল উৎসাহেতে বলল হঠাৎ বেঁকে “দাদামশায়, শাবাশ ! তোমার কালের মনের গতি, পেলেম তারি ইতিহাসের আভাস ।” কইনু তারে, “দেখ তো ভায়া, কোথায় আছে তোর অমিয়কাকা ।” আকা-মারু জাহাজ । গঙ্গা Sa wNGKS ( Sa sa } আশীৰ্বাদ তরুণ আশীর্বাদপ্রার্থীর প্রতি প্ৰাচীন কবির নিবেদন শ্ৰীযুক্ত দিলীপকুমার রায়ের উদ্দেশে নিনে সরোবর স্তৱন্ধ হিমাদ্রির উপত্যকাতলে । উধের্ব গিরিশৃঙ্গ হতে শ্ৰান্তিহীন সাধনার বলে তরুণ নিবার ধায় সিন্ধুসনে মিলনের লাগি অরুণোদয়ের পথে । সে কহিল, “আশীৰ্বাদ মাগি হে প্ৰাচীন সরোবর ।” সরোবর কহিল হাসিয়া, “আশিস তোমারি তরে নীলাম্বরে উঠে। উদ্ভাসিয়া প্ৰভাতসূর্যের করে ; ধ্যানমগ্ন গিরিতপস্বীর বিগলিত করুণার প্রবাহিত আশীর্বাদিনীর তোমারে দিতেছে প্ৰাণধারা । আমি বনচ্ছায়া হতে, নির্জনে একান্তে বসি, দেখি নির্বরিত স্রোতে ংগীত-উদবোেল নৃত্যে প্রতিক্ষণে করিতেছ। জয় মসীকৃষ্ণ বিষ্মপুঞ্জ, পাথরোধী পাষাণসঞ্চয়, গৃঢ় জড় শক্রদল । এই তব যাত্রার প্রবাহ আপনার গতিবেগে আপনার জাগায় উৎসাহ ।” S, 8 CN Svebedd: