পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড) - সুলভ বিশ্বভারতী.pdf/১৬৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Gło রবীন্দ্র-রচনাবলী অকুরে অকুরে উঠল। জেগে ছন্দে সুরে সুরে । নানারূপের খেলনা যে তার নানা বর্ণের্তমাকে, বারেক খোলে, ব্যারেক তারে ঢাকে । রোদবাদলে করুণ কান্না হাসি । সদাই ওঠে আভাসি উচ্ছসি । ওই-যে শিশুর অবুঝ ভোলা মন তরীর কোণে বসে বসে দেখছি তারই আকুল আন্দোলন । মাঝে-মাঝে সাগর-পানে তাকিয়ে দেখি যত মনে ভাবি, ও যেন এই শিশু-আঁখির মতো, আকাশ-পানে আবছায়া ওর চাওয়া কোন স্বপনে-পাওয়া, অস্তরে ওরা যেন সে কোন অবুঝ ভোলা মন এ তীর হতে ও তীর —পানে দুলছে অনুক্ষণ । কেমন কলিতাষে প্ৰলয়কদিন বঁকাদে ও যে প্ৰবল হাসি হাসে আপনিও তার অর্থ আছে ভুলে— ক্ষণে ক্ষণে শুধুই ফুলে ফুলে অকারণে গর্জি উঠে শূন্যে শূন্যে মূঢ় বাহু তুলে । বিরাট অবুঝ এই সে আদিম মন, মানব-ইতিহাসের মাঝে আপনারে তার অধীর অন্বেষণ । ঘর হতে ধায় আঙন-পানে, আঙিন হতে পথে, পথ হতে ধায় তেপান্তরের বিত্মবিষম অরণ্যে পর্বতে ; এই সে গড়ে, এই সে ভাঙে, এই সে কী আক্ষেপে পায়ের তলায় ধারণীরে আঘাত করে ধুলায় আকাশ ব্যেপে ; হঠাৎ খেপে উঠে রুদ্ধ পাষাণভিত্তি-’পরে বেড়ায় মাথা কুটে । অনাসৃষ্টি সৃষ্টি আপনগড়া তাই নিয়ে সে লড়াই করে, তাই নিয়ে তার কেবল ওঠাপড়া । হঠাৎ উঠে বেঁকে যায় সে ছুটে কী রাঙা রঙ দেখে অদৃশ্য কোন দূর দিগন্ত-পানে ; আবছায়া কোন সন্ধ্যা-আলোয় শিশুর মতো তাকায় অনুমানে, তাহার ব্যাকুলতা স্বপ্নে সত্যে মিশিয়ে রচে বিচিত্র রূপকথা । আবা-মারু জাহাজ So VNC Yssa