পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড) - সুলভ বিশ্বভারতী.pdf/৩২৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


VS)OV রবীন্দ্ৰ-রচনাবলী ধুলোয় তারা ছিল যে কান পেতে, পায়ের চিহ্ন বুকে পড়বে ভীমকা এই ছিল প্ৰত্যাশা ৷” আরতি হয়ে গেছে। সারা মন্দিরের দ্বার তখন বন্ধ, ভিড়ের লোক গেছে রাজবাড়িতে । কীর্তনী আপন মনে গাইছে “প্ৰাণের ঠাকুর, এরা কি পাথর গোথে তোমায় রাখবে বেধে । তুমি যে স্বৰ্গ ছেড়ে নামলে ধুলোয় তোমার পরশ আমার পরশ মিলবে বলে ।” সেই পিপুল-তলার অন্ধকারে একা একা গাইছিল কীর্তনী, আর আরেকজন গোপনে বাজিরাও পেশোয়া । ছাড়া পাবে হৃদয়-মাঝে । থাক গে। ওরা পাথরখানা নিয়ে পাথরের বন্দীশালায় অহংকারের-কাটার-বেড়া-ঘেরা ।” রাত্ৰি প্ৰভাত হল । শুকতারা অরুণ-আলোয়। উদাসী । তোরণাদ্ধারে বাজল বাশি বিভাসে ললিতে । অভিষেকের স্নান হবে, পুরোহিত এল তীৰ্থবারি নিয়ে । রাজবাড়ির ঠাকুরঘর শূন্য । জ্বলছে দীপশিখা, পূজার উপচার পড়ে আছে— বাজিরাও পেশোয়া গেছে চলে পথের পথিক হয়ে । S S SRI SVOSIO