পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড) - সুলভ বিশ্বভারতী.pdf/৩৪০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


voSR SR রবীন্দ্র-রচনাবলী দয়াহীন দুৰ্গম পথ উপলখণ্ডে আকীর্ণ। ভক্ত চলেছে, তার পশ্চাতে বলিষ্ঠ এবং শীর্ণ তরুণ এবং জরাজর্জর, পৃথিবী শাসন করে যারা আর যারা অর্ধশিনের মূল্যে মাটি চাষ করে । কেউ বা ক্লান্ত বিক্ষতচরণ, কারো মনে ক্ৰোধ, কারো মনে সন্দেহ । তারা প্ৰতি পদক্ষেপ গণনা করে আর শুধায়, কত পথ বাকি । তার উত্তরে ভক্ত শুধু গান গায় । শুনে তাদের ভুকুটিল হয়, কিন্তু ফিরতে পারে না, চলমান জনপিণ্ডের বেগ এবং অনতিব্যক্ত আশার তাড়না তাদের ঠেলে নিয়ে-যায় । ঘুম তাদের কমে এল, বিশ্রাম তারা সংক্ষিপ্ত করলে, পরম্পরকে ছাড়িয়ে চলবার প্রতিযোগিতায় তারা ব্যগ্ৰ, ভয়- পাছে বিলম্ব করে বঞ্চিত হয় । দিনের পর দিন গেল । দিগন্তের পর দিগন্ত আসে, অজ্ঞাতের আমন্ত্রণ অদৃশ্য সংকেতে ইঙ্গিত করে । ওদের মুখের ভাব ক্রমেই কঠিন আর ওদের গঞ্জনা উগ্রতর হতে থাকে । 2 রাত হয়েছে । পথিকেরা বটতলায় আসন বিছিয়ে বসিল । একটা দমকা হাওয়ায় প্ৰদীপ গেল নিবে, অন্ধকার নিবিড়যেন নিদ্রা ঘনিয়ে উঠল মূৰ্ছায় । জনতার মধ্য থেকে কে-একজন হঠাৎ দাড়িয়ে উঠে অধিনেতার দিকে আঙুল তুলে বললে, মিথ্যাবাদী, আমাদের প্রবঞ্চনা করেছি । ভৎসনা এক কণ্ঠ থেকে আরেক কষ্ঠে উদগ্র হতে থাকিল । তীব্র হল মেয়েদের বিদ্বেষ, প্রবল হল পুরুষদের অর্জন । অবশেষে একজন সাহসিক উঠে দাড়িয়ে হঠাৎ তাকে মারলে প্ৰচণ্ড বেগে । অন্ধকারে তার মুখ দেখা গেল না । একজনের পর একজন উঠল, আঘাতের পর আঘাত করলে, তার প্রাণহীন দেহ মাটিতে লুটিয়ে পড়ল । রাত্রি নিন্তৱন্ধ । ঝর্নার কলশব্দ দূর থেকে ক্ষীণ হয়ে আসছে। বাতাসে যুখীর মৃদুগন্ধ । Գ যাত্রীদের মন শঙ্কায় অভিভূত । মেয়েরা কাদছে ; পুরুষেরা উত্ত্যক্ত হয়ে ভৎসনা করছে, চুপ করো। কুকুর ডেকে ওঠে, চাবুক খেয়ে আর্ত কাকুতিতে তার ডাক CRAV