পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড) - সুলভ বিশ্বভারতী.pdf/৩৪৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


V-V-O MSD YS VS YVSOVSOD রবীন্দ্ৰ-রচনাবলী কেউ বা এসে প্রহর-খানেক বসে তলায়, পা ছড়িয়ে কেউ বা বাজায় বাঁশি, নববধূর পালকিখানা নামিয়ে রাখে চাদের শীর্ণ আলো । যাওয়া-আসার স্ৰোত বহে যায় দিনে রাতেধরে- রাখার নাই কোনো আগ্ৰহ, দূরে রাখার নাই তো অভিমান । রাতের তারা স্বল্পপ্ৰদীপখানি ভোরের আলোয় ভাসিয়ে দিয়ে যায় চলে, তার দেয় না। ঠিকানা । গানের বাসা তোমরা দুটি পাখি, মিলন-বেলায় গান কেন আজ মুখে মুখে নীরব হল । আতশবাজির বক্ষ থেকে চতুর্দিকে স্মৃফুলিঙ্গ সব ছিটকে পড়ে— Cea CN বিরহতাপ ছড়িয়ে গিয়েছিল সারারাত্রি সুরে সুরে বনের থেকে বনে । গানের মূর্তি নিয়ে তারা পড়ল না তো ধরাবাতাস তাদের মিলিয়ে দিল দিগন্তরের অরণ্যচ্ছায়ায় । আমরা মানুষ, ভালোবাসার জন্যে বাসা বাধি, চিরকালের ভিত গড়ি তার গানের সুরে ; খুঁজে আনি জরাবিহীন বাণী সে মন্দিরের গাথন দিতে । বিশ্বজনের সবার জন্যে সে গান থাকে সব প্রেমিকের প্রাণের আসন মেলে দিয়ে । বিপুল হয়ে উঠেছে। সে দেশে দেশে কালে কালে । মাটির মধ্যখানে থেকে মাটিকে সে অনেক দূরে ছাড়িয়ে তোলে মাথা কল্পস্বৰ্গলোকে ।