পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড) - সুলভ বিশ্বভারতী.pdf/৪৭৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


86ł R রবীন্দ্র-রচনাবলী ঘরটি সাজানো রয়েছে- থালায় মালা, পালঙ্কে পুস্পশয্যা, কেবল জীবনপ্রদীপটি জ্বলছে না, সন্ধ্যা ক্রমে রাত্রি হতে চলল। বাঃ, দিব্যি লিখেছে। কোন বইটাতে আছে বলে দেখি । শ্ৰীশ । বইটার নাম ‘আবাহন’ । পূর্ণ। নামটাও বেছে বেছে দিয়েছে ভালো। (আপন মনে)- নিশি না পোহাতে জীবনপ্ৰদীপ জ্বালাইয়া যাও প্ৰিয়া ৷’’(দীর্ঘনিশ্বাস) তোমরা কি বাড়ির দিকে চলেছ । শ্ৰীশ । বাড়ি কোন দিকে ভুলে গেছি। ভাই । পূর্ণ। আজ পথ ভোলবার মতোই রাতটা হয়েছে বটে। কী বল বিপিনবাবু। শ্ৰীশ । বিপিনবাবু এ-সকল বিষয়ে কোনো কথাই কন না, পাছে ওঁর ভিতরকার কবিত্ব ধরা পড়ে। কৃপণ যে জিনিসটার বেশি আদর করে সেইটোকেই মাটির নীচে পুঁতে রাখে । বিপিন। অস্থানে বাজে খরচ করতে চাই নে ভাই, স্থান খুঁজে বেড়াচ্ছি। মরতে হলে একেবারে গঙ্গার ঘাটে গিয়ে মরাই ভালো । পূর্ণ। এ তো উত্তম কথা, শাস্ত্ৰসংগত কথা। বিপিনবাবু একেবারে অন্তিম কালের জন্যে কবিত্ব সঞ্চয় করে রাখছেন, যখন অন্যে বাক্য কবেন। কিন্তু উনি রবেন নিরুত্তর । আশীর্বাদ করি অন্যের সেই বাক্যগুলি যেন মধুমাখা হয় শ্ৰীশ । এবং তার সঙ্গে যেন কিঞ্চিৎ কালের সম্পর্কও থাকেবিপিন । এবং বাক্যবর্ষণ করেই যেন মুখের সমস্ত কর্তব্য নিঃশেষ না হয়পূর্ণ। বাক্যের বিরামস্থলগুলি যেন বাক্যের চেয়ে মধুমত্তর হয়ে ওঠেশ্ৰীশ । সেদিন নিদ্রা যেন না আসেপূর্ণ। রাত্ৰি যেন না যায়— বিপিন । চন্দ্ৰ যেন পূৰ্ণচন্দ্ৰ হয়পূর্ণ। বিপিন যেন বসন্তের ফুলে প্রফুল্প হয়ে ওঠেশ্ৰীশ । এবং হতভাগ্য শ্ৰীশ যেন কুঞ্জম্বারের কাছে এসে উকি ঝুকি না মারে । পূর্ণ। দূর হােক গে শ্ৰীশবাবু, তোমার সেই “আবাহন’ থেকে আর-একটা কিছু কবিতা আওড়াও । চমৎকার লিখেছে হে-- নিশি না পোহাতে জীবনপ্ৰদীপ৷ জ্বালাইয়া যাও প্ৰিয়া । আহা ! একটি জীবনপ্রদীপের শিখাটুকু আর-একটি জীবনপ্রদীপের মুখের কাছে কেবল একটু ঠেকিয়ে গেলেই হয়, বাস, আর কিছুই নয়—দুটি কোমল অঙ্গুলি দিয়ে দীপখানি একটু হেলিয়ে একটু ভুঁইয়ে যাওয়া, তার পরেই চকিতের মধ্যে সমস্ত আলোকিত । (আপন মনে)- নিশি না পোহাতে জীবনপ্ৰদীপ৷ জ্বালাইয়া যাও প্ৰিয়া । শ্ৰীশ । পূৰ্ণবাবু, যাও কোথায় ? পূর্ণ। চন্দ্ৰবাবুর বাসায় একখানা বই ফেলে এসেছি, সেইটে খুঁজতে যাচ্ছি। বিপিন। খুঁজলে পাবে তো ? চন্দ্ৰবাবুর বাসা বড়ো এলোমেলো জায়গা- সেখানে যাহারায় সে আর →N3श या बन्म । [পূর্ণের প্রস্থান শ্ৰীশ । (দীর্ঘনিশ্বাস ফেলিয়া) পূর্ণ বেশ আছে ভাই বিপিন । বিপিন। ভিতরকার বাম্পের চাপে ওর মাথাটা সোডাওআটারের ছিপির মতো একেবারে টপ করে উড়ে an rit !