পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড) - সুলভ বিশ্বভারতী.pdf/৪৭৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8@や - রবীন্দ্র-রচনাবলী বিপিন। বটে বটে, তাকে বলে আসতে ভুলে গিয়েছিলেম।- একবার তার সঙ্গে দেখা করে আসি গে । রসিক । (জন্নান্তিকে) পুনর্বার কিছু সংগ্রহের চেষ্টায় আছেন বুঝি ? মানবধর্মটা ক্রমেই আপনাকে চেপে ६६02 | [বিপিনের প্রস্থান শ্ৰীশ। রসিকবাবু, আপনার কাছে আমার একটা পরামর্শ আছে। . রসিক । পরামর্শ দেবার উপযুক্ত বয়স হয়েছে, বুদ্ধি না হতেও পারে। শ্ৰীশ । আপনাদের ওখানে সেদিন যে দুটি মহিলাকে দেখেছিলেম তাদের দুজনকেই আমার সুন্দরী বলে বোধ হল । রসিক । আপনার বোধশক্তির দোষ দেওয়া যায় না । সকলেই তো ঐ এক কথাই বলে । শ্ৰীশ । তাদের সম্বন্ধে যদি মাঝে মাঝে আপনার সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করি তা হলে কিরসিক । তা হলে আমি খুশি হব, আপনারও সেটা ভালো লাগতে পারে, এবং তাদেরও বিশেষ ক্ষতি হবে R | শ্ৰীশ । কিছুমাত্র না । ঝিল্লি যদি নক্ষত্র সম্বন্ধে জল্পনা করেরসিক । তাতে নক্ষত্রের নিদ্রার ব্যাঘাত হয় না । শ্ৰীশ । ঝিল্লিরই অনিদ্রারোগ জন্মাতে পারে । কিন্তু তাতে আমার আপত্তি নেই । রাসিক । আজ তো তাই বোধ হচ্ছে । শ্ৰীশ । র্যার রুমাল কুড়িয়ে পেয়েছিলুম তার নামটি বলতে হবে । রসিক । তার নাম নৃপবালা । শ্ৰীশ । তিনি কোনটি । রসিক । আপনিই আন্দাজ করে বলুন দেখি । শ্ৰীশ । র্যার সেই লাল রঙের রোশমের শাড়ি পরা ছিল ? রসিক । বলে যান । শ্ৰীশ । যিনি লজ্জায় পালাতে চাচ্ছিলেন, অথচ পালাতেও লজ্জা বোধ করছিলেন— তাই মুহুর্তকালের জন্য হঠাৎ ত্ৰস্ত হরিণীর মতো থমকে দাড়িয়েছিলেন, সামনের দুই-এক গুচ্ছ চুল প্ৰায় চোখের উপরে এসে পড়েছিল— চাবির-গোচ্ছা-বাধা চু্যত অঞ্চলটি বা হাতে তুলে ধরে যখন দ্রুতবেগে চলে গেলেন তখন তার পিঠ-ভরা কালো চুল আমার দৃষ্টিপথের উপর দিয়ে একটি কালো জ্যোতিষ্কের মতো ছুটে নৃত্য করে চলে গেল । রসিক । এ তো নৃপবালাই বটে। পা দুখানি লজ্জিত, হাত দুখানি কুষ্ঠিত, চােখ দুটি ত্ৰস্ত, চুলগুলি কুঞ্চিত, দুঃখের বিষয় হৃদয়টি দেখতে পান নি- সে যেন ফুলের ভিতরকার লুকোনো মধুটুকুর মতো মধুর, শিশিরাটুকুর মতো করুণ । শ্ৰীশ । রসিকবাবু, আপনার মধ্যে এত যে কবিত্বরস সঞ্চিত হয়ে রয়েছে তার উৎস কোথায় এবার টের পেয়েছি । রসিক । ধরা পড়েছি। শ্ৰীশবাবু কবিন্দ্ৰাণাং চেতঃ কমলবনমালাতপরুচিং ভজন্তে যে সন্তঃ কতিচিদরুণামেব ভবতীং । বিরিঞ্চিপ্ৰেয়স্যাস্তারুণতর শূঙ্গারলহরীং গভীরাভিৰ্বাগি ভির্বিদধতি সভারঞ্জনাময়ীং । কবীন্দ্ৰদের চিত্তকমলাবনমালার কিরণলেখা যে তুমি, তোমাকে যারা লেশমাত্র ভজনা করে তারাই গভীর বাক্য দ্বারা সরস্বতীর সভারঞ্জনাময়ী তরুণলীলালহরী প্ৰকাশ করতে পারে । আমি সেই কবিচিত্তকমলবনের কিরণলেখাটির পরিচয় পেয়েছি । শ্ৰীশ । আমিও অল্প দিন হল একটু পরিচয় পেয়েছি, তার পর থেকে কবিত্ব আমার পক্ষে সহজ হয়ে (€TርቫC፰ |