পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড) - সুলভ বিশ্বভারতী.pdf/৬২৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


やりOV3 রবীন্দ্র-রচনাবলী আমার সমস্তকে অধিকার করে তুমি আমার হও, আমার সমস্ত সুখদুঃখের উপরে দাড়িয়ে তুমি আমার হও, আমার সমস্ত পাপকে তোমার পায়ের তলায় ফেলে দিয়ে তুমি আমার হও । সমস্ত অসংখ্য লোক লোকান্তর যুগযুগান্তরের উপরে নিস্তব্ধ বিরাজমান যে পরম-এক তুমি, সেই মহা-এক তুমি, আমার মধ্যে আমার হও । সেই এক তুমি ‘পিতা নোহসি— আমার পিতা । সেই এক তুমি ‘পিতা নো বোধি - আমার বোধের মধ্যে আমার পিতা হও, আমার প্রবৃত্তির মধ্যে প্ৰভু হও, আমার প্রেমের মধ্যে প্ৰিয়তম হও । এই প্রার্থনা জানাবার যে গৌরব মানুষ আপনার অন্তরাত্মার মধ্যে বহন করেছে, এই প্রার্থনা সফল করবার যে গৌরব আপন ভক্তপরম্পরার মধ্য দিয়ে কত কাল হতে লাভ করে এসেছে, মানুষের সেই শ্রেষ্ঠতম গভীরতম চিরন্তন গৌরবের উৎসব আজ এই সন্ধ্যাবেলায়, এই লোকালয়ের প্রান্তে, আদ্যকার পৃথিবীর নানা জন্মমৃত্যু হাসিকান্না কাজকর্ম বিশ্বাস-অবিশ্বাসের মধ্যে এই ক্ষুদ্র প্রাঙ্গণটিতে । মানুষের সেই গৌরবের আনন্দধবনিকে আলোকে সংগীতে পুষ্পমালায় স্তবগানে উদঘোষিত করবার এই উৎসব । বিশ্বের মধ্যে তুমি একমেবাদ্বিতীয়ম, মানুষের ইতিহাসে তুমি একমেবাদ্বিতীয়ম, আমার হৃদয়ের সত্যতম প্রেমে তুমি একমেবাদ্বিতীয়ম— এই কথা জানতে এবং জানাতে আমরা এখানে এসেছি । তর্কের দ্বারা নয়, যুক্তির দ্বারা নয় । আনন্দের দ্বারা, শিশু যেমন সহজবোধে তার পিতামাতাকে জানে এবং জানায় সেইরকম পরিপূর্ণ প্রত্যয়ের দ্বারা ! হে উৎসবের অধিদেবতা, আমাদের প্রত্যেকের কাছে এই উৎসবকে সফল করো ; এই উৎসবের মধ্যে, হে আবিঃ, তুমি আবির্ভূত হও । আমাদের সকলের সম্মিলিত চিত্তাকাশে তোমার দক্ষিণমুখ প্রকাশিত হােক। প্রতিদিন আপনাকে অত্যন্ত ক্ষুদ্র জেনে যে দুঃখ পেয়েছি সেই বোধ হতে, সেই দুঃখ হতে, এখনই আমাদের পরিত্রাণ করে । সমস্ত লোভ-ক্ষোভের উদ্ধের্ব ভূমার মধ্যে আত্মাকে উপলব্ধি করে বিশ্বমানবের বিরাট সাধনমন্দিরে আজ এখনই তোমাকে নত হয়ে নমস্কার করি । নমস্তেহস্তু । তোমাতে আমাদের নমস্কার সত্য হােক, নমস্কার সত্য হোক । sh SS N S v SA ব্ৰাহ্মসমাজের সার্থকতা একটি গান যখনই ধরা যায় তখনই তার রূপ প্রকাশ হয় না ; তার একটা অংশ সম্পূর্ণ হয়ে যখন সমে ফিরে আসে তখন সমস্তটার রাগিণী কী এবং তার অন্তরােটা কোন দিকে গতি নেবে সে কথা চিন্তা করবার সময় আসে । আমাদের দেশের ইতিহাসে ব্ৰাহ্মসমাজেরও ভূমিকা একটা সমে এসে দাঁড়িয়েছে ; তার আরম্ভের দিকের কাজ একটা সমাপ্তির মধ্যে পৌচেছে । যে-সমস্ত প্ৰাণহীন অভ্যস্ত লোকাচারের জড় আবরণের মধ্যে আচ্ছন্ন হয়ে হিন্দুসমােজ আপনার চিরন্তন সত্য সম্বন্ধে চেতনা হারিয়ে বসেছিল ব্ৰাহ্মসমাজ তার সেই আবরণকে ছিন্ন করবার জন্যে তাকে আঘাত করতে প্ৰস্তুত হয়েছিল । ব্ৰাহ্মসমাজের পক্ষ থেকে এই-যে আঘাত দেবার কাজ এ একটা সমে এসে উত্তীর্ণ হয়েছে । নিজের সম্বন্ধে সচেতন হয়ে উঠেছে ; হিন্দুসমাজ নানা দিক দিয়ে নিজের ভিতরকার নিত্যতম এবং মহত্তম সত্যকে উপলব্ধি করবার জন্যে চেষ্টা করতে প্ৰবৃত্ত হয়েছে। এই চেষ্টা একেবারে সম্পূর্ণ হয়ে উঠতে পারে না, এই চেষ্টা নানা ঘাতপ্রতিঘাত ও সত্যমিথ্যার ভিতর দিয়ে ঘুরে নানা শাখা-প্ৰশাখার পথ খুঁজতে খুঁজতে আপন সার্থকতার দিকে অগ্রসর হবে। এই চেষ্টার অনেক রূপ দেখা যাচ্ছে যার মধ্যে সত্যের মূর্তি বিশুদ্ধভাবে প্রকাশ পাচ্ছে না ; কিন্তু তবু যেটি প্রধান কাজ সেটি সম্পন্ন হয়েছে, হিন্দু সমাজের চিত্ত জেগে উঠেছে। এই চিত্ত যখন জেগেছে তখন হিন্দুসমাজ আর তো অন্ধভাবে কালের স্রোতে ভেসে যেতে পারে না ; তাকে এখন থেকে দিকনির্ণয় করে চলতেই হবে, নিজের হালটা কোথায় তা তাকে খুঁজে নিতেই হবে। ভুল অনেক করবে, কিন্তু ভুল করবার শক্তি যার হয়েছে। ভুল সংশোধন করবারও শক্তি তার জেগেছে।