পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড) - সুলভ বিশ্বভারতী.pdf/৭০৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


VbrU রবীন্দ্র-রচনাবলী মানুষের ইতিহাসে এই যে উৎসব চলছে তারই কি একটি প্রতিরূপ আজকের এই মেলার মধ্যে দেখতে পাচ্ছিনা। এখানে কেউ বাজার করছে, কেউ খেলা করছে, কেউ যাত্রা শুনছে, কিন্তু নিষেধ তো করা হয়নি, বলা হয় নি। এখানে উপাসনা হচ্ছে- তোমরা সাধু হয়ে চুপ করে বসে থাকে। সমস্ত পৃথিবী জুড়ে মানুষের জগতে যে একটা প্রচণ্ড কোলাহল চলছে শক্তিনিকেতনের নিভৃত শক্তিকে তা আবিল করুক। মানুষই কোলাহল করে, আর তো কেউ করে না। কিন্তু মানুষের কোলাহল আজ পর্যন্ত কি মানুষের সংগীতকে থামাতে পারল। ঈশ্বর যে খনির ভিতর থেকে রত্নকে উদ্ধার করতে চান, তিনি যে বিরোধের এই কোলাহলের মধ্য থেকেই তীর পূজাকে উদ্ধার করবেন। কারণ, এই কোলাহলের জীব মানুষ যখন শান্তিকে পায় তখন সেই গভীরতম শক্তির তুলনা কোথায়। সে শান্তি জনহীন সমুদ্র নেই, মরুভূমির স্তব্ধতায় নেই, পর্বতের দুৰ্গম শিখরে নেই। আত্মার মধ্যে সেই গভীর শান্তি। চারিদিকের কোলাহলতকে আক্রমণ করতে গিয়ে পরাস্ত হয় ; কোলাহলের ভিতরে নিবিড়রাপে সুরক্ষিত সেই শান্তি। হাট বসে গিয়েছে, বেচা-কেনার রব উঠেছে; তারইমধ্যে প্রত্যেক মানুষ তার আপনার আত্মার ভিতরে একটি যোগাসনকে বহন করছে। হে যোগী, জাগে। তােমার যোগাসন প্রস্তুত, তোমার আসন তুমি গ্রহণ করে; এই কোলাহলে, ষড়রিপুর ক্ষোভ-বিক্ষোভ বিরোধের মাঝখানে অক্ষতশান্তি, সেইখানে বোসে। সেখানে তোমার উৎসব প্ৰদীপ জ্বলো, কোনো অশান্ত বাতাস তাকে নেবাতে পারবে না। তুমি কোলাহল দেখে ভীত হয়ে না; ফলের গর্ভে শস্য যেমন তিক্ত আবরণের ভিতরে থেকে রক্ষা পায়, সেইরূপ কোলাহলের দ্বারাই বেষ্টিত হয়ে চিরকাল মানুষের শান্তিরক্ষা পেয়ে এসেছে। মানুষ তার বৈষয়িকতারবুকের উপর তারইষ্টদেবতাকে সর্বত্রই তো প্রতিষ্ঠিত করেছে। যেখানে তাঁর আসক্তি জীবনের সব সূত্রগুলিকে জড়িয়ে রেখেছে তারই মাঝখানে তার মন্দিরের চূড়া দেবােলাকের দিকে তাকিয়ে রয়েছে। আমাদের চিত্ত আজ অনুকূল হয়নি,ক্ষতি নেই। যাক যার মন যেখানে খুশি যাক, কোনাে নিষেধ নেই। তবু এই অসীম স্বাধীনতার ভিতরে মানুষের পূজার ক্ষেত্র সাবধানে রক্ষিত হয়ে এসেছে। সেই কথাটি আজ উপলব্ধি করবার জন্য কোলাহলের মধ্যে এসেছি। যার ভক্তি আছে, যার ভক্তি নেই, বিষয়ী ব্যবসায়ী পাপী, সকলেরই মধ্যে তীর পূজা হচ্ছে। এইখনেই এই মেলার মধ্যেই তীর পূজা হয়েছে, এই কোলাহলের মধ্যেই র্তার স্তব উঠেছে। এইখনেই সেই শান্তং শিবং অদ্বৈতমের পদধ্বনি শুনছি; এই হাটের রাস্তায় তঁর পদচিহ্ন পড়েছে। মানুষের এই আনাগোনারহাটেইষ্ঠার আনাগেন ; তিনি এইখনেই দেখা দিচ্ছেন। রাত্রি, ৭ পীেষ УVOS) ATT SORS