পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড) - সুলভ বিশ্বভারতী.pdf/৭১৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গ্ৰন্থপরিচয় VSV) ধীরে ধীরে বানান্তে মিলালো প্ৰান্তরের প্রান্ততটে অন্তঃশেষ ক্ষীণ। পাংশু আলো । তব অন্তৰ্ধানে তব হেরিলাম রূপ চিরন্তন, অন্তরে অলক্ষ্যলোকে তোমার পরম আগমন । লভিলাম চিরস্পর্শমণি ; তোমার শূন্যতা তুমি পরিপূর্ণ করেছ আপনি । যে-দ্বার খুলিয়া গেলে রুদ্ধ সে হবে না কোনোমতে, কান পাতি রহে তব ফিরিবার প্রত্যাশার পথে তোমার অমুর্ত আসা-যাওয়া যে পথে চঞ্চল করে দিগবালার অঞ্চলের হাওয়া । বসন্তে মাঘের অন্তে আস্রবনে মুকুলমত্ততা মধুপগুঞ্জনে মিশি আনে কোন কানো-কানে কথা । মোর নাম তব কণ্ঠে ডাকা ক্ষান্ত আজি তাপৱকান্ত দিনান্তের মৌন দিয়ে ঢাকা । বিরহের সঙ্গহীন স্তব্ধতার গভীর নিভৃতে বাক্যহারা চিত্তে মোর এতদিনে পাইনু শুনিতে তুমি কবে মর্ম মাঝে পশি দিলে অনির্বাচনীয় ধ্যানমন্ত্রবাণী মহীয়সী। অন্তরের অন্ধকারে এতদিনে পাইনু সন্ধান সন্ধ্যার দেউলদীপ চিত্তে মোর তোমারি সে দান । বিচ্ছেদের হােমবহির হতে পুজামুর্তি ধরি প্ৰেম দেখা দিল দুঃখের আলোতে । SV TANS Y VOOd "বিরহ ও অন্তর্ধন” কবিতা-দুটির পাণ্ডুলিপিতে-প্ৰাপ্ত একীকৃত প্ৰাথমিক পাঠ । কবিতাটির প্রথম শ্লোকের পরে পাণ্ডুলিপিতে নিম্নোদকৃত একটি সম্পূর্ণ নূতন শ্লোক আছে : শ্রাবণের বর্ষণে যা দিয়েছে ঢালি, দান সেই অল্প তো নয় । ফায়ুনে ধরণীর যৌবনডালি ভরে সেই রাসসঞ্চয় । তার পরে আশ্বিনে মেঘ উদাসীন শূন্য গগনতলে সম্বলহীন ; স্বচ্ছ প্ৰভাতে ধরা চাহে তার পানে, বিদায়ঋতুরে নাহি ডরে । আলোতে শিশিরে। আর সৌরভো প্ৰাণে গৌরবে বিচ্ছেদ ভরে ।