প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ষোড়শ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১১২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8 ०२ রবীন্দ্র-রচনাবলী --

  • রামানন্দ বললেন, ‘প্রভাতেই যাব এই সীমা ছেড়ে,

দেব আমার অহংকার দূর করে তোমার বিশ্বলোকে । তখন রাত্রি তিন প্রহর, আকাশের তারাগুলি যেন ধ্যানমগ্ন । । গুরুর নিদ্রা গেল ভেঙে ; শুনতে পেলেন, ‘সময় হয়েছে, ওঠে, প্রতিজ্ঞা পালন করে।’ রামানন্দ হাতজোড় করে বললেন, ‘এখনো রাত্রি গভীর, । পথ অন্ধকার, পাখিরা নীরব । প্রভাতের অপেক্ষায় অাছি।’ ঠাকুর বললেন, ‘প্রভাত কি রাত্রির অবসানে । যখনি চিত্ত জেগেছে, শুনেছ বাণী, তখনি এসেছে প্রভাত । ঘাও তোমার ব্ৰতপালনে ? রামানন্দ বাহির হলেন পথে একাকী, মাথার উপরে জাগে ধ্রুবতার । পার হয়ে গেলেন নগর, পার হয়ে গেলেন গ্রাম । নদীতীরে শ্মশান, চণ্ডাল শবদাহে ব্যাপৃত। রামানন্দ দুই হাত বাড়িয়ে তাকে নিলেন বক্ষে । সে ভীত হয়ে বললে, ‘প্রভু, আমি চণ্ডাল, নাভা আমার নাম, হেয় আমার বৃত্তি, অপরাধী করবেন না অামাকে । গুরু বললেন, ‘অস্তরে আমি মৃত, অচেতন আমি, তাই তোমাকে দেখতে পাই নি এতকাল, তাই তোমাকেই আমার প্রয়োজন-- নইলে হবে না মৃতের সৎকার।’ চললেন গুরু অাগিয়ে । ভোরের পাখি উঠল ডেকে,