প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ষোড়শ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১১৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পুনশ্চ 'S &A ‘প্রাণের ঠাকুর, এর কি পাথর গেঁথে তোমায় রাখবে বেঁধে । তুমি যে স্বর্গ ছেড়ে নামলে ধুলোয় তোমার পরশ আমার পরশ মিলবে ব’লে |’ সেই পিপুল-তলার অন্ধকারে এক এক গাইছিল কীর্তনী, আর শুনছিল আরেকজন গোপনে— বাজিরাও পেশোয়া । শুনছিল সে– ‘তুমি আমায় ডাক দিয়েছ আগল-দেওয়া ঘরের থেকে, আমায় নিম্নে পথের পথিক হবে । ঘুচবে তোমার নির্বাসনের ব্যথা, ছাড়া পাবে হৃদয়-মাঝে । থাক্ গে ওরা পাথরখানা নিয়ে পাথরের বন্দীশালায় অহংকারের-কাটার-বেড়া-ঘের । রাত্রি প্রভাত হল । শুকতার অরুণ-আলোয় উদাসী । তোরণদ্বারে বাজল বাশি বিভাসে ললিতে । অভিষেকের স্নান হবে, পুরোহিত এল তীর্থবারি নিয়ে। রাজবাড়ির ঠাকুরঘর শূন্ত । জলছে দীপশিখা, to পূজার উপচার পড়ে আছে— বাজিরাও পেশোয়া গেছে চলে পথের পথিক হয়ে । ১৪ মাঘ ১৩৩৯