প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ষোড়শ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১২১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পুনশ্চ لا لا لا বালুচরের প্রাস্তে গ্রাম। গলির মধ্যে প্রবেশ করলেন গুরু । সেখানে তেঁতুল গাছের ঘন ছায়া, শাখায় শাখায় বানরদলের লাফালাফি । গলি পৌছয় ভাজন মুচির ঘরে। পশুর চামড়ার গন্ধ আসছে দূর থেকে। আকাশে চিল উড়ছে পাক দিয়ে, রোগ। কুকুর হাড় চিবোচ্ছে পথের পাশে । শিষ্য বললেন, ‘রাম । রাম ? ভ্ৰকুটি করে দাড়িয়ে রইল গ্রামের বাইরে। ভাজন লুটিয়ে পড়ে গুরুকে প্রণাম করলে সাবধানে । গুরু তাকে বুকে নিলেন তুলে । ভাজন ব্যস্ত হয়ে উঠল, ‘কী করলেন প্রভু, অধমের ঘরে মলিনের গ্লানি লাগল পুণ্যদেহে । রামানন্দ বললেন, স্নানে গেলেম তোমার পাড়া দূরে রেখে, তাই যিনি সবাইকে দেন ধৌত করে র্তার সঙ্গে মনের মিল হল না। এতক্ষণে তোমার দেহে আমার দেহে বইল সে বিশ্বপাবনধারা । ভগবান সূর্যকে আজ প্রণাম করতে গিয়ে প্রণাম বেধে গেল । বললেম, হে দেব, তোমার মধ্যে যে জ্যোতি আমার মধ্যেও তিনি, তবু আজ দেখা হল না কেন । এতক্ষণে মিলল তার দর্শন তোমার ললাটে আর আমার ললাটে— মন্দিরে আর হবে না যেতে |’ ১৫ ফাল্গুন ১৩৩৯