প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ষোড়শ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১২৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ఇః y \b \ মঞ্চের উপরে বাজছে বাশি মৃদঙ্গ করতাল,. মাঠ জুড়ে কানাতের পর কানাত, মাঝে মাঝে উঠেছে ধ্বজ । পথের দুই ধারে ব্যাপারীদের পসরা— তামার পাত্র, রুপোর অলংকার, দেবমূর্তির পট, রেশমের কাপড় ; ছেলেদের খেলার জন্যে কাঠের ডমরু, মাটির পুতুল, পাতার বঁশি ; অর্ঘ্যের উপকরণ, ফল মালা ধূপ বাতি, ঘড়া ঘড়া তীর্থবারি। বাজিকর তারস্বরে প্রলাপবাক্যে দেখাচ্ছে বাজি, কথক পড়ছে রামায়ণকথা । উজ্জ্বলবেশে সশস্ত্র প্রহরী ঘুরে বেড়ায় ঘোড়ায় চড়ে ; রাজ-অমাত্য হাতির উপর হাওদায়, সম্মুখে বেজে চলেছে শিঙা । কিংখাবে ঢাকা পান্ধিতে ধনীঘরের গৃহিণী, আগে পিছে কিংকরের দল । সন্ন্যাসীর ভিড় পঞ্চবটের তলায়, নগ্ন, জটাধারী, ছাইমাখা ; মেয়েরা পায়ের কাছে ভোগ রেখে যায়— ফল, দুধ, মিষ্টান্ন, ঘি, আতপ তণ্ডুল । থেকে থেকে আকাশে উঠছে চীৎকারধ্বনি, ༢ི་སྐ জয় ত্রিলোকেশ্বরের জয় । কাল আসবে শুভলগ্নে রাজার প্রথম পূজা, স্বয়ং আসবেন মহারাজা রাজহস্তীতে চড়ে । র্তার আগমন-পথের দুই ধারে সারি সারি কলার গাছে ফুলের মালা, মঙ্গলঘটে আম্রপল্লব । আর ক্ষণে ক্ষণে পথের ধুলায় সেচন করছে গন্ধবারি। শুক্লত্রয়োদশীর রাত । মন্দিরে প্রথম প্রহরের শঙ্খ ঘণ্টা ভেরী পটহ থেমেছে।