প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ষোড়শ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১২৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পুনশ্চ SS (t পৃথিবী যখন স্তব্ধ হল পূর্ণপ্রায় চাদ তখন হেলেছে পশ্চিমের দিকে। আকাশে উঠছে জলে-ওঠ কানাতগুলোর ধোয়ার কুণ্ডলী, জ্যোৎস্নাকে যেন অজগর সাপে জড়িয়েছে । পরদিন আত্মীয়দের বিলাপে দিগ্‌বিদিক যখন শোকার্ত তথন রাজসৈনিকদল মন্দির ঘিরে দাড়ালে, পাছে অশুচিতার কারণ ঘটে । রাজমন্ত্রী এল, দৈবজ্ঞ এল, স্মার্ত পণ্ডিত এল'। দেখলে বাহিরের প্রাচীর ধূলিসাৎ ৷ দেবতার বেদির উপরের ছাদ পড়েছে ভেঙে ! পণ্ডিত বললে সংস্কার করা চাই আগামী পূর্ণিমার পূর্বেই, নইলে দেবতা পরিহার করবেন তার মৃতিকে । রাজা বললেন, ‘সংস্কার করে ? πι মন্ত্রী বললেন, “ওই কিরাতরা ছাড়া কে করবে পাথরের কাজ । ওদের দৃষ্টিকলুষ থেকে দেবতাকে রক্ষা করব কী উপায়ে, কী হবে মন্দিরসংস্কারে যদি মলিন হয় দেবতার অঙ্গমহিমা ।” কিরাত-দলপতি মাধবকে রাজা আনলেন ডেকে । বৃদ্ধ মাধব, শুক্লকেশের উপর নির্মল সাদা চাদর জড়ানো— পরিধানে পীতধড়া, তাম্রবর্ণ দেহ কটি পর্যন্ত অনাবৃত, দুই চক্ষু সকরুণ নম্রতায় পূর্ণ। সাবধানে রাজার পায়ের কাছে রাখলে একমুঠে কুন্দকুল, প্রণাম করলে স্পর্শ বঁচিয়ে । রাজা বললেন, ‘তোমরা না হলে দেবালয়-সংস্কার হয় না।’ “আমাদের পরে দেবতার ঐ কৃপা এই বলে দেবতার উদ্দেশে মাধব প্রণাম জানালে । নৃপতি নৃসিংহরায় বললেন, ‘চোখ বেঁধে কাজ করা চাই, দেবমূতির উপর দৃষ্টি না পড়ে। পারবে ? মাধব বললে, ‘অস্তরের দৃষ্টি দিয়ে কাজ করিয়ে নেবেন অন্তর্যামী । যতক্ষণ কাজ চলবে, চোখ খুলব না ।