প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ষোড়শ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/২২৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চিরকুমার-সভা さ>° নৃপবালা। আমি জানি মুখুজ্জেমশায় । বলব ? ৪৭৫ মাইল । নীরবালা । সেজদিদি অবাক করলি । তুই কি মুখুজ্জেমশায়ের হৃদয়ের পিছনে পিছনে মাইল গুনতে গুনতে ছুটেছিলি নাকি । নৃপবালা । না ভাই, দিদি কাশী যাবার সময় টাইমটেবিলে মাইলট দেখেছিলুম। অক্ষয় | — গণন চলেছে ছুটিয়া পলাতক হিয়া, বেগে বহে শিরা ধমনী । হায় হায় হায় ধরিবারে তায় পিছে পিছে ধায় রমণী । বায়ুবেগভরে উড়ে অঞ্চল, লটপট বেণী দুলে চঞ্চল— এ কী রে রঙ্গ, আকুল-অঙ্গ ছুটে কুরঙ্গগমনী । নীরবালা । কবিবর, সাধু সাধু। কিন্তু, তোমার রচনায় কোনো কোনো আধুনিক কবির ছায়া দেখতে পাই যেন । অক্ষয় । তার কারণ, আমিও অত্যন্ত আধুনিক । তোরা কি ভাবিস তোদের মুখুজ্জেমশায় কৃত্তিবাস ওঝার যমজ ভাই। ভূগোলের মাইল গুনে দিচ্ছিস, আর ইতিহাসের তারিখ ভুল ? তা হলে আর বিদুষী খালী থেকে ফল হল কী। এতবড়ো -আধুনিকটাকে তোদের প্রাচীন বলে ভ্রম হয় ? নীরবাল । মুখুজ্জেমশায়, শিব যখন বিবাহসভায় গিয়েছিলেন তখন তার খালীরাও ওই রকম ভুল করেছিলেন, কিন্তু উমার চোখে তো অন্য রকম ঠেকেছিল । তোমার ভাবনা কিসের, দিদি তোমাকে আধুনিক বলেই জানেন। অক্ষয়। মূঢ়ে, শিবের যদি খালী থাকত তা হলে কি তার ধ্যানভঙ্গ করবার জন্যে অনঙ্গদেবের দরকার হত। আমার সঙ্গে তার তুলনা ? নৃপবালা। আচ্ছ মুখুজ্জেমশায়, এতক্ষণ তুমি এখানে বসে বসে কী করছিলে । অক্ষয় । তোদের গয়লাবাড়ির দুধের হিসেব লিখছিলুম। নীরবালা । (ডেস্কের উপর হইতে অসমাপ্ত চিঠি তুলিয়া লইয়া) এই তোমার গয়লাবাড়ির হিসেব ? হিসেবের মধ্যে ক্ষীর-নবনীর অংশটাই বেশি। অক্ষয় । ( ব্যস্তসমস্ত ) না না, ওটা নিয়ে গোল করিস নে, আহা, দিয়ে যা— নৃপবালা । নীরুভাই, জালাস নে, চিঠিখানা ওঁকে ফিরিয়ে দে— ওখানে শুশলীর ১৩|| ১৫