প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ষোড়শ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৭২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


যাই আসি, তারি মাঝখান দিয়ে সকালে বিকালে । আনমনে দেখি শিউলিগাছে কুঁড়ি ধরেছে, টগর গেছে ফুলে ছেয়ে । বিশ্বের মাঝে মানুষের সংসারটুকু দেখতে ছোটে, তবু ছোটো তো নয়। তেমনি ঐ কীটের সংসার । ভালে করে চোখে পড়ে না, তবু সমস্ত স্বষ্টির কেন্দ্রে আছে ওরা। কত যুগ থেকে অনেক ভাবনা ওদের, অনেক সমস্তা, অনেক প্রয়োজন— অনেক দীর্ঘ ইতিহাস । দিনের পর দিন, রাতের পর রাত চলেছে প্রাণশক্তির দুর্বার আগ্রহ। মাঝখান দিয়ে যাই আসি, শব্দ শুনি নে ওদের চিরপ্রবাহিত চৈতন্যধারার— ওদের ক্ষুধাপিপাসা-জন্মমৃত্যুর। গুন গুন স্বরে আধখান। গানের জোড় মেলাতে খুজে বেড়াই বাকি আধখানা পদ, এই অকারণ অদ্ভুত খোজের কোনো অর্থ নেই ঐ মাকড়সার বিশ্বচরাচরে, લે পিপড়ে-সমাজে। ওদের নীরব নিখিলে এখনি উঠছে কি স্পর্শে স্পশে সুর, ভ্রাণে ব্ৰাণে সংগীত, মুখে মুখে অশ্রত আলাপ | চলায় চলায় অব্যক্ত বেদনা