প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ষোড়শ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৭৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


* H | ਜੋ d চললেম টবস্থদ্ধ গাছ নিয়ে । | দেগা গেল, পাশ্ববর্তিনী হিসাবে সহযাক্রিণীটি সহজ নয় । একটা দো-কামরা গাড়িতে টবটাকে লুকোলেম নাবার ঘরে। থাক এই ভ্রমণবৃত্তান্ত, বাদ দেওয়া যাক আরো মাস কয়েকের তুচ্ছত। পুজোর ছুটিতে প্রহসনের যবনিক উঠল সাওতাল পরগনায় । জায়গাটা ছোটো । নাম বলতে চাই নে— বায়ুবদলের বায়ু-গ্ৰস্তদল এ জায়গার খবর জানে না। কমলার মামা ছিলেন রেলের এঞ্জিনিয়র । এইখানে বাসা বেঁধেছেন শালবনের ছায়ায়, কাঠবিড়ালিদের পাড়ায় । সেখানে নীল পাহাড় দেখা যায় দিগন্তে, অদূরে জলধারা চলেছে বালির মধ্যে দিয়ে, পলাশবনে তসরের গুটি ধরেছে, মহিষ চরছে হর্তকি গাছের তলায়— উলঙ্গ সাওতালের ছেলে পিঠের উপরে। বাসাবাড়ি কোথাও নেই, তাই তাবু পাতলেম নদীর ধারে । সঙ্গী ছিল না কেউ, কেবল ছিল টবে সেই ক্যামেলিয়া । কমল এসেছে মাকে নিয়ে । রোদ ওঠবার আগে হিমে-ছোওয়া স্নিগ্ধ হাওয়ায় শাল-বাগানের ভিতর দিয়ে বেড়াতে যায় ছাতি হাতে। মেঠে ফুলগুলো পায়ে এসে মাথা কোটে, কিন্তু সে কি চেয়ে দেখে । هيم