প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ষোড়শ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৮৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পুনশ্চ . ፃ¢ দল বেঁধে আহুক ওর চার দিকে। জ্যোতির্বিদের মতো আবিষ্কার করুক ওকে— শুধু বিদুষী বলে নয়, নারী বলে। ওর মধ্যে যে বিশ্ববিজয়ী জাদু আছে ধরা পড়ুক তার রহস্ত, মূঢ়ের দেশে নয়— যে দেশে আছে সমজদার, আছে দরদি, আছে ইংরেজ জৰ্মান ফরাসি । মালতীর সম্মানের জন্য সভা ডাকা হোক-না, বড়ে বড়ো নামজাদার সভা | মনে করা যাক সেখানে বর্ষণ হচ্ছে মুষলধারে চাটুবাক্য, মাঝখান দিয়ে সে চলেছে অবহেলায়— ঢেউয়ের উপর দিয়ে যেন পালের নেীকে । ওর চোখ দেখে ওরা করছে কানাকানি, সবাই বলছে ভারতবর্ষের সজল মেঘ আর উজ্জল রৌদ্র মিলেছে ওর মোহিনী দৃষ্টিতে। ( এইখানে জনাস্তিকে বলে রাখি, স্বষ্টিকর্তার প্রসাদ সত্যই আছে আমার চোখে বলতে হল নিজের মুথেই, এখনো কোনো যুরোপীয় রসজ্ঞের সাক্ষাৎ ঘটে নি কপালে । ) নরেশ এসে দাড়াক সেই কোণে, আর তার সেই অসামান্ত মেয়ের দল। আর তার পরে ? তার পরে আমার নটেশাকটি মুড়োল, স্বপ্ন আমার ফুরোল । হায় রে সামান্ত মেয়ে ! হায় রে বিধাতার শক্তির অপব্যয় ! ২৯ শ্রাবণ ১৩৩৯ {{