পাতা:রাজা ও রাণী-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১১৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কুমার । রাজা ও রাণী মুদে আসে, দারুণ দুঃস্বপ্ন দেখে কেঁদে জেগে উঠি ; সুখস্থপ্ত মুখখানি তব দেখে পুনঃ প্রাণ পাই প্রাণে ! তুর্ভাবনা দুঃস্বপ্ন-জননী । ভেবে না আমার তরে বোন ! সুখে আছি । মগ্ন হ’য়ে জীবনের মাঝ খানে, কে জেনেছে জীবনেব সুখ ? মরণের তটপ্রাস্তে বসে’, এ যেন গো প্রাণপণে জীবনেব একান্ত সম্ভোগ । এ সংসাবে যত সুখ, যত শোভা, যত প্রেম আছে, সকলি প্রগাঢ় হ’য়ে যেন আমারে কবিছে আলিঙ্গন । জীবনের প্রতি বিন্দুটিতে যত মিষ্ট আছে, সব তামি পেতেছি আস্বাদ । ঘন বন, তুঙ্গ শৃঙ্গ, উদার আকাশ, উচ্ছসিত নিঝরিণী, আশ্চৰ্য্য এ শোভা । অযাচিত ভালবাসা অরণ্যের পুষ্পবৃষ্টিসম অবিশ্রাম হতেছে বর্ষণ । চারিদিকে ভক্ত প্রজাগণ । তুমি আছ প্রীতিময়ী শিয়বে বসিয়া । উড়িবার আগে বুঝি জীবন-বিহঙ্গ বিচিত্রবরণ পাথ। করিছে বিস্তার। ওই শোন কাঠুরিয়া গান গায় ; শোনা যাবে রাজ্যের সংবাদ ।