পাতা:রাজা ও রাণী-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রথম অঙ্ক R অগ্নিকে বলে পাবক, অগ্নিতে সকল পাপ নষ্ট করে। জঠরাগ্নির বাড়া ত আর অগ্নি নেই। অনেকে। আগুন ! তা ঠিক বলেছ। বেঁচে থাক ঠাকুর । তবে তাই হবে । তা আমরা আগুনই লাগিয়ে দেব” । ওরে আগুনে পাপ নেই রে । এবার ওঁদের বড় বড় ভিটেতে ঘুঘু চরাব ! কুঞ্জব। আমার তিনটে সড়কি আছে। মনমুখ। আমার এক গাছ লাঙ্গল আছে, এবার তাজপরা মাথাগুলো মাটির ঢেলার মত চযে’ ফেলব ! শ্রীহব কলু। আমার এক গাছ বড় কুড়ুল আছে, কিন্তু পালাবার সময় সেটা বাড়িতে ফেলে এসেছি ! হরিদান কুমোব। ওরে তোবা মর্তে বসেচিস না কি ? বলিস কি রে। আগে বাজাকে জানা, তা’ব পরে যদি না শোনে, তখন অন্ত পরামর্শ হবে। কিন্তু নাপিত। আমিও সেই কথা বলি । কুঞ্জব। আমিও ত তাই ঠাওরাচ্চি। শ্ৰীহর। আমি ববাবব বলে আসছি, ঐ কায়স্থর পোকে বলতে দাও। আচ্ছা, দাদা, তুমি রাজাকে ভয় করবে না ? ময়ূরাম কায়স্থ। ভয় আমি কাউকে করি নে। তোর লুঠ কর্তে যাচ্চিস, আর আমি দুটাে বলতে পাধি নে ? মনসুখ । দাঙ্গ করা এক, আর কথা বলা এক । এষ্ট ত বরাবর দেখে আসচি, হাত চলে, কিন্তু মুখ চলে না। কিন্তু । মুখেব কোনো কাজটাই হয় না—অল্পও জোটে না, কথাও ফোটে না । কুঞ্জর। আচ্ছা, তুমি কি বলবে বল ? মনু, আমি ভয় করে বলব না ; আমি প্রথমেই শাস্ত্র বলব।