পাতা:রাজা ও রাণী-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রথম অঙ্ক ৩৩ ত্রি । তা বুঝেছি। হরি হে! কিন্তু মন্ত্রী, কাজের সময় আমাকে ডাক, আর পৈরহিত্যের বেলায় দেবদত্তের খোজ পড়ে । মন্ত্রী। তুমি ত জান ঠাকুর, দেবদত্ত বেদজ্ঞ ব্রাহ্মণ, ওঁকে দিয়ে আর ত কোনো কাজ হয় না ! উনি কেবল মন্ত্র পড়তে আর ঘণ্টা নাড়তে পাবেন । ত্রি। কেন, আমার কি বেদের উপর কম ভক্তি ? আমি বেদ পূজো করি, তাই বেদ পাঠ কববার সুবিধে হ’য়ে ওঠে না। চন্দনে আর সি দূরে আমার বেদের একটা অক্ষবও দেখ বার জো নেই। আজই আমি যাব ! হে মধুস্থদন ! মন্ত্রী। কি বলবে ? ত্রি। তা আমি বলব কালভৈরবের পূজে, তাই রাজা তোমাদের নিমন্ত্রণ করেছেন—আমি খুব বড় রকম সালঙ্কার দিয়েই বলব—সব কথা এখন মনে আস্চে না-পথে যেতে যেতে ভেবে নেব। হরি হে তুমিই সত্য ! মন্ত্রী। যাবার আগে একবার দেখা করে যেয়ে ঠাকুর । ( প্রস্থান ) ত্রি। আমি নিৰ্ব্বোধ, আমি শিশু, আমি সরল, আমি তোমাদের কাজ উদ্ধার করবার গোরু ! পিঠে বস্তা, নাকে দড়ি, কিছু বুঝব না শুধু ল্যাজে মোড়া খেয়ে চলব—আর সন্ধ্যেবেলায় দুটিখানি শুকনো বিচিলি খেতে দেবে! হরি হে তোমারি ইচ্ছে! দেখা যাবে কে কতখানি বোঝে ! ওরে এখনো পূজোর সামগ্ৰী দিলিনে ? বেলা যায় যে ! নারায়ণ ! নারায়ণ ।