পাতা:রাজা ও রাণী-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


WONG রাজা ও রাণী পিঠে হাত বুলিয়ে দেওয়া শক্ত। হে ভগবান, যদি রাজা স্পষ্ট করেই বলত—একবার হাতের কাছে এস ত, তোমাদের একেকটাকে ধরে রাজ্য থেকে নিৰ্ব্বাসন করে পাঠাই—ত হ’লে এটা কখনও সন্দেহ কর্তে না যে, হয় ত বা রাজকন্যার সঙ্গে পরিণাম বন্ধন করবার জন্তেই রাজা ডেকে থাকবেন । কিন্তু রাজা বলেছেন নাকি, হে বন্ধু সকল, রাজদ্বারে শ্মশানে চ যস্তিষ্ঠতি স বান্ধব, অতএব তোমবা পূজো উপলক্ষে এখানে এসে কিঞ্চিৎ ৷ ফলাহার করবে”--অম্নি তোমাদেব সন্দেহ হয়েছে সে ফলাহারটা কি রকমের না জানি ! হে মধুস্থদন ! তা এমনি হয় বটে। বড় লোকের সামান্ত কথায় সন্দেহ হয়, আবার সামান্ত লোকের বড় কথায় সন্দেহ হয় ! জয় । ঠাকুর, তুমি অতি সরল প্রকৃতিব লোক। আমার যে টুকু বা সন্দেহ ছিল, তোমার কথায় সমস্ত ভেঙে গেছে । ত্রি। তা লেহ কথা বলেছ। আমি তোমাদের মত বুদ্ধিমান নই —সকল কথা তলিয়ে বুঝতে পারিনে—কিন্তু, বাবা,—সকল পুরাণ সংহিতায় যাকে বলে, “আন্ত্যে পরে কা কথা” অর্থাৎ অন্তোব কথা নিয়ে কখনো থাকিনে । জয়। আর কাকে কা’কে তুমি নিমন্ত্রণ কর্তে বেরিয়েছ ? ত্রি । তোমাদেব পোড়া নাম আমাব মনে থাকে মা । তোমাদেব কাশ্মীরী স্বভাব যেমন তোমাদের নামগুলোও ঠিক তেমনি শ্রতিপৌরুষ, তা এরাজ্যে তোমাদের গুষ্টির যেখেনে যে আছে সকলকেই ডাক পড়েছে। শূলপাণি ! কেউ বাদ যাবে না। জয় । যাও, ঠাকুর, এখন বিশ্রাম করগে । ত্রি। যাহোক, তোমার মন থেকে যে সমস্ত সন্দেহ দূর হয়েছে মন্ত্রী এ কথা শুনলে ভারী খুলী হবে। মুকুন্দ মুরহর মুরারে । ( প্রস্থান )