পাতা:রাজা ও রাণী-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৮৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


** শঙ্কর । সুমি । রাজা ও রাণী শান্তিব প্রস্তাব শুনে যখন হাসিল ক্ষুদ্র জয়সেন, হাসিমুখে ভূত্য যুদ্ধাজিৎ করিল স্থতার উপহাস, - সত্ৰভঙ্গে কহিলা বিক্রমদেব জালন্ধববাজ তোমাবে বালক, ভার ; মনে হ’ল যেন চারিদিকে হাসিতেছে সভাসদ যত পরম্পব মুখ চেয়ে, হাসিতেছে দুবে দ্বারেব প্রহরী পশ্চাতে আগাছল যারা তাদেব নীবল হাসি ভুজঙ্গেব মত যেন পৃষ্ঠে আসি মোর দংশিতে লাগিল । তখন ভুলিয়া গেনু শিখেছি যত শান্তিপূর্ণ মৃতুবাক্য, কাহলাম রোষে—- *কলহেরে জান তুমি বীরত্ব বলিয়া, নাবী তুমি, নহ ক্ষত্রবীর, সেই খেদে মোব রাজা কোষে ল’য়ে কোষর দ্বী তাসি ফিবে যেতেছেন দেশে, জানাইনু সবে ।” শুনিয়া কম্পিততনু জালন্ধর পতি ; প্রস্তুত হতেছে সৈন্ত । ক্ষমা কর ভাই । এই কি উচিত তব, কাশ্মীরতনয়৷ তুমি, ভাবতে রটায়ে যাবে কাশ্মীরের অপমান কথা ? বীরের স্বধৰ্ম্ম হ’তে বিরত কোরো না তুমি আপন ভ্রাতারে, রাখ এ মিনতি । বোলো না, বোলো না আর