পাতা:রামতনু লাহিড়ী ও তৎকালীন বঙ্গসমাজ.djvu/১১৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
৮৩
চতুর্থ পরিচ্ছেদ ।

স্কুল খোলেন। প্রথম দিন ১৬টী মাত্র বালক উপস্থিত হয়। কিন্তু ত্বরাপ্ত ছাত্র সংখ্যn বদ্ধিত হইতে লাগিল। অবশেষে হুগলীর কমিশনার মিষ্টর ফবস (Ir Forbes) ওলন্দাজদিগের পরিত্যক্ত পুরাতন , কেল্লাতে ভুলের জঠ । একটী প্রশস্ত ঘর দিলেন। । রেভরেও মে সেখানে স্কুল করিতে লাগিলেন। হুই এক বৎসরের মধ্যে আরও করেকটী শাখা স্কুল স্থাপিত হইয়া ঐ সকল স্কুলে প্রায় ৯৫১ জন বালক শিক্ষালাভ করিতে লাগিল। মিষ্টর ফর্বদ স্কুল গুলির উত্তরোত্তর উন্নতি দর্শনে প্রীত হইয়া গবৰ্ণমেন্টের নিকট হইতে মাসিক ৬০০ ছয় শত টাকা সাহায্য দে ওয়াইয়া দিলেন। রেভরেও মের চূচূড়ার। স্কুলগুলির উন্নতিদর্শনে উৎসাহিত হুইয়া বদ্ধমানের রাজা তেজচন্দ্র বাহাদুর আপনার প্রতিষ্ঠিত পাঠশালাটীকে ইংরাজী স্কুলে পরিণত করিলেন।

 ওদিকে শ্রীরামপুরে কেরী, মার্শম্যান প্রভৃতি মিশনারিগণ ইংরাজী শিক্ষার এই মহা-আন্দোলনের মধ্যে উদাসীন ছিলেন না। ১৮১৫ সালে তাহারাত্রীরামপুরে। তাহাদের সুপ্রসিদ্ধ কালেজের সূত্রপাত করিলেন । এতদ্ভিন্ন র্তাহারা রামমোহন। রায় ও দ্বারকানাথ ঠাকুরের সাহায্যে মান৷ স্থানে ইংরাজী স্কুল স্থাপন করিতে লাগিলেন। এরূপ জনশ্রুতি আছে যে রামমোহন রায় ধর্মবিহীন শিক্ষাকে বড় ভয় পাইতেন। । সেজ্য নব প্রতিষ্টিত হিল কালেজের ধর্মবিহীন শিক্ষাকে ভয়ের চক্ষে দেথিতেন। এ সম্বন্ধে একটী গল্প আছে। হিন্দুকালেজ প্রতিষ্ঠিত হওয়ার কিছুদিন পরে একজন আসিয়া তাহাকে বলিল —“দেওয়ানজি, অমুক আগে ছিল polytheist, তার পর হইয়াছিল liest, এখন হইয়াছে atheist. " রামমোহন রায় হাসিয়া বলিলেন,-“শেষে বোধ হয় হইবে best* । যাহা হউক তিনি মিশনারিদিগের ধর্মানুগত শিক্ষার পক্ষপাতী ছিলেন। সেই জন্ত ১৮৩ সালে আলেকজাণ্ডার ডফ আসিম্রা সাহায্য চাহিলেই তাহার স্কুল স্থাপনে বিশেষ সহায়ত৷ করিয়াছিলেন।

 এই সময়ে এদেশীয় ভদ্রলোকদিগের মধ্যে স্বীয় স্বীয় সস্তানদিগকে ইংরাজী শিক্ষা দিবার জন্য যথেষ্ট আগ্রহ দৃষ্ট হইয়াছিল । ১৮১৪ সালে, কাণীধামে জয়নারায়ণ ঘোষাল নানক একজন সম্রান্ত হিন্দু ভদ্রলোক মৃত্যুকালে লণ্ডন মিশনারি সোসাইটীর হস্তে ইংরাষ্ট্রী শিক্ষা বি স্তারের জন্ত বিংশতি সহস্র মুদ্রা দির। ঘান। . গবৰ্ণমেন্টকে ইংরাজী শিক্ষা দান বিষয়ে উদাসীন দেখিয়াই তিনি ঐ প্রকার করিরা পাকিবেন।

 এদেশে রাজপুরুষগণ অনেক সময়ে প্রজাবৃন্দের চিন্তারুচি, প্রবৃত্তি ও