পাতা:রামতনু লাহিড়ী ও তৎকালীন বঙ্গসমাজ.djvu/১৩০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
৯৪
রামতনু লাহিড়ী ও তৎকালীন বঙ্গসমাজ ।

কেন রহিত হইয়াছিল বলিতে পারি না; বোধ হয় কৃষ্ণনগরের বাড়ীতে বিবাহাদি দ্বারা পরিবার বৃদ্ধি। হওয়াতে ব্যয় বৃদ্ধি হইয়াছিল। লাহিড়ী মহাশয় বলিয়াছেন, যে তিনি এক এক সময়ে এরূপ অর্থকষ্টের মধ্যে পড়ি তেন যে ভাবিয়া কুল কিনারা পাইতেন না। একবার তাহার বন্ধু কৃষ্ণমোহন। বন্দ্যোপাধ্যায়ের নিকট ৭৮ টাকা কক্ত করিলেন। তৎপরে একবার নিরু পায় হইয়া মহাত্মা হেক্সারের শরণাপন্ন হইতে হইল। হেয়ার, কাহাকেও বলি বেন না এই প্রতিজ্ঞা করাইয়া, তাহাকে কিছু অর্থ সাহায্য করিলেন। তিনি হেয়ারের জীবদ্দশাতে এ কথা কাহারও নিকট ব্যক্ত করেন নাই।

 এই হিন্কালেজের শিক্ষার সময়ের আর একটী স্মরণীয় ঘটনা আছে॥ এই সময়ে একবার তিনি বিষম ওলাউঠা রোগে আক্রান্ত হন। হেয়ার সংবাদ। পাইবামাত্র আসিয়া নিজেই তাহার চিকিৎসা করিতে প্রবৃত্ত হন। হেয়ারের নিকট নানাপ্রকার ঔষধ সর্বদাই থাকিত। একদিন হেয়ার সন্ধ্যার পর রোগীর সংবাদ না পাইয়া অধিক। রাত্রে লালদিঘীর নিকট হইতে হাটিয়াএক জঘন্ত্য, দুর্গন্ধময় গলির ভিতর রামতনু বাবুর বাসাতে আ.সয়া উপস্থিত হইলেন। প্রথমে বাসার লোকে তাহার কণ্ঠস্বর ও ইংরী ভাষা শুনিয়া মনে করিল, বুঝি কোনও মাতাল গোর। দ্বারে আঘাত করিতেছে, তাই দ্বার খুলিতে বিলম্ব করিতে লাগিল। হেয়ার তাহা বুঝিতে পারিয়া হিন্দীতে বলিলেন—“ডরো মত, হাম হেয়ার সাহেব হায়। তখন তাহার দ্বার খুলিল।

 হায় হায়! মানব-প্রেমিক হেয়ার এই বালকদিগকে যেরূপ ভালবাসিতেন, এবং তাহাদের জষ্ঠ্য যাহা করিতেন, পিতা মাতাও তাহার অধিক করে না।

 এই সময়েই ইহার অনুরূপ আর একটী ঘটনা ঘটে। একবার হিন্দু কালেজের একটি ছাত্র, চন্দ্রশেখর দেব, একদিন সন্ধ্যাকালে গ্রে সাহেবের ভবনে হেয়ারের সহিত সাক্ষাৎ করিতে গিয়াছিল। কথা কহিতে কহিতে সন্ধ্যা হইয়া . গেল। আবার মুষলধারাতে বৃষ্টি নামিল। হেয়ার বালক টীকে ছাড়িলেন না। নিজের মিঠাই ওয়ালার নিকট হইতে প্রচুর পত্রিমাণে মিঠাই খাওয়াইলেন; এবং নিজে ইত্যবসরে আহার করিয়া আইলেন॥ তৎপরে বৃষ্টি থামিলে বলিলেন;—"চল তোমাকে একটু জাগাইয়া দিয়া আসি, পথে গোরারা আছে তোমাকে একেলা যাইতে দিতে পারি না।! এই বলিয়া এক গাছি মোটা লাঠি। লইয়া চন্দ্রশেখরের সমভিবাহারী হইলেন।