পাতা:রামতনু লাহিড়ী ও তৎকালীন বঙ্গসমাজ.djvu/৩৮৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।
৩২০
রামতনু লাহিড়ী ও তৎকালীন বঙ্গসমাজ

তিনি যে উপদেশাদি দিতে লাগিবেন, তাহ মুদ্রিত হইয়া দেশমধ্যে ব্রাহ্মধর্ম। প্রচারের পক্ষে বিশেষ সহায়তা করিতে লাগিল। ইহা স্বরণীর ঘটনা যে তাহার মেদিনীপুরের উপদেশ পাঠ করিয়াই সুপ্রসিদ্ধ কেশবচন্দ্র সেন মহাশয় ব্রাহ্মসমাজের দিকে আকৃষ্ট হইস্লাছিলেন।

 অচির কালের মধ্যে ব্রাহ্মধর্ম বিষয়ে মেদিনীপুর বঙ্গদেশের মধ্যে একটা প্রধান স্থান হইয়া উঠিল। ‘বমুজ মহাশয় কেবল মুখে ব্রাহ্মধর্ম প্রচার করিয়া সন্তুষ্ট থাকিলেন না; কিন্তু ব্রাহ্মধর্ম অনুসারে পারিবারিক অনুষ্ঠান করিতে অগ্রসর হইলেন। অনুমান ১৮৬৪ কি ১৮৬৫ সালে ব্রাহ্মধর্মের পদ্ধতি অনুসারে। কৃষ্ণধন ঘোষ নামক একজন চিকিৎসাব্যবসায়ী যুবকের সহিত তাঁহার জৈাঙা। কন্যার বিবাহ হইল। এতদুপলক্ষে কলিকাতা হইতে দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর, কেশবচক্র সেন প্রভৃতি ব্রাহ্মসমাজের অগ্রণীগণ মেদিনীপুরে গমন করিলেন; এবং মেদিনীপুরস্থ সকল শ্ৰেণীর সন্ত্রাস্তবাক্তিগণ সমবেত হইলেন। সে অনুষ্ঠানের তরঙ্গ দেশের অপরাপর দ্যুম্নবৰ্ত্তী স্থানেও অনুভূত হইল।

 কিন্তু ব্রাহ্মধর্ম ও ব্রাহ্মসমাজ সম্বন্ধে রাজনারায়ণ বাবুর মেদিনীপুর বাস। কালেয় প্রধান কার্যা। “স্বপ্নতত্ত্বদীপিকা’ নামক গ্রন্থ প্রণয়ন। এই গ্রন্থ তিনি। ১৮৫৩ সালে আরম্ভ করিয়া ১৮৬৬ সালে শেষ করেন। বলিতে গেলে এই গ্রন্থ প্রণরন করিতে গিয়াই তিনি গুরতর শিরঃপীড়া দ্বারা আক্রান্ত হইয়া জন্মের মত অমুস্থ হইলেন। এই গ্রন্থে যে প্রভূত গবেষণা ও চিন্তায় পরিচর পাওয়া যায়, তাহা দেখিলে বিস্মিত হইতে হয়।

 তৎপরে উল্লেখ যোগ্য বিষয় জাতীয়-গৌরবসম্পাদনী সভা। দেশীয় শিক্ষিত দলের মধ্যে জাতীয় ভাব উদ্দীপ্ত করা এই সতার উদ্দেগ্য ছিল। এতৎসংস্রবে তিনি ইংরাজীতে ‘A society for the promotion of national feeling among the educated 'Natives of Bengal, নামে এক প্রস্তাবনা পত্র বাহির করিয়াছিলেন শুনিতে পাওয়া যায়, ঐ প্রস্তাবনা পত্র পাঠ করিয়াই হিন্দুমেলার প্রবর্তক নবগোপাল মিত্র মহাশল্পের মনে তাঁহার নিজের প্রতিষ্ঠিত জাতীয় সঙ্গ] ও জাতীয় মেলায় ভাব উদিত হয়। এই জাতীর-গৌরব সম্পাদনী সভা সংক্রান্ত একটা কৌতুকজন কে ম্যুণীয় বিষয় আছে। সে সময়ে। ইংরাজী শিক্ষিত ব্যক্তিগণের মধ্যে উঠিতে বসিতে নড়িতে' চড়িতে ইংরাজী ভাষা ব্যবহারের বাড়াবাড়ি দেখিয়া উক্ত সভার সভ্যগণ এই নিয়ম করিয়াছিলেন যে তাহারা পরস্পরের সহিত জলাপে বা চিঠি পত্রাদিতে ইংরাজীর পরিবর্তে বাঙ্গালা