পাতা:রামতনু লাহিড়ী ও তৎকালীন বঙ্গসমাজ.djvu/৬০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
৩৪
রামতনু লাহিড়ী ও তৎকালীন বঙ্গসমাজ ।

দুঃখের বিষয় প্রবনের সে পূৰ্ব্ব শ্ৰী আর, নাই। যে, মুরম্য প্রাসাদ ইহার প্রধান সৌন্দৰ্য্য ছিল তাহার ভগ্নাবশেষও এখন নাই। ক্ষিতীশবংশাবলীচরিতকার উক্ত স্থানের নিম্নলিখিতরূপ বর্ণনা করিয়াছেন :–

 “এই স্থান অতি রমণীয়। অঞ্জনা যদিও এখন স্থির-সলিলা হইয়! গতিবিহীন হইয়াছে, তথাপি তদীয় পূৰ্ব্বকালীন মনোহারিণী শোভা এককালে তিরোহিত হয় নাই। প্রায় অৰ্দ্ধ ক্রোশ পর্যন্ত ইহার উভয় কুলে গ্রাম্য বৃক্ষ-সমূহ শ্রেণীবদ্ধ থাকাতে, এরূপ অপরূপ শোভা হইয়া রহিয়াছে, যেন কোন প্রকৃতি-প্রিয় মহাপুরুষ, স্বভাবের সৌন্দৰ্য্য প্রদর্শন করিবার বাসনায়, নিবিড় কানন মধ্যে এই জলাশয় প্রস্তুত করিয়া রাখিয়াছেন । প্রাহ্নে, অপরাহ্নে, অথবা রজনীকালে, এই নদীতে নৌকারোহণ করিয়া ইতস্ততঃ নয়ন সঞ্চারণ করিবামাত্র অসুস্থ হৃদয়ে সুস্থতা লাভ হয়। কতিপয় বর্ষ পূৰ্ব্বে আমাদিগের স্বপ্রসিদ্ধ কবিবর মাইকেল মধুসূদন এই নদীর অপূৰ্ব্ব শোভা সন্দর্শনে কহিয়াছিলেন,—“হে অঞ্জনে ! তোমাকে দর্শন করিয়া আমি অতিশয় প্রীত হইলাম, তোমাকে কখনই ভুলিব না, এবং তোমার বর্ণনা করিতেও ক্রট করিব না।” এই রাজার ( ঈশ্বরচন্দ্রের ) পূৰ্ব্বে পূৰ্ব্বপুরুষেরা এই নদীতটস্থ প্রাসাদের দক্ষিণ দিকে, যে কানন আছে, তাহাতে বিবিধ মুম্বাছ ফলের বৃক্ষ রোপণ করি। তাহার নাম মধুপোল এবং ঐ কাননের পূর্বাংশে যে উপবন আছে তাহার নাম আনন্দ-কানন রাখেন। মধুপোল অশোক, চম্পক, বক, কাঞ্চন, নাগকেশর, মুচুকন, কিংগুক, শান্মলী ইত্যাদি পুষ্পবৃক্ষ-শ্রেণীতে শোভিত ছিল ; এক্ষণে কেবল কিংশুক ও শান্মলী বৃক্ষমাত্র আছে। তথাপি বসন্তকালে এই তরুরাজি বিকশিত রক্তবর্ণ কুসুমাবলিতে অলঙ্কত হইয়া অপূৰ্ব্ব শোভা ধারণ করে। প্রায় পঞ্চবিশ বৎসর অতীত হইল একদ। আমাদের সুবিখ্যার্ত কবি মদনমোহন কাব্য-রত্নাকর এই শোভা সন্দর্শনে লিথিয়াছিলেন—“জগদীশ্বর সর্বভূতকে অদ্ভূত প্রদর্শনার্থ যেন রাশীভূত সিন্দুর রক্ষা করিয়াছেন।”

এই কবিজনের মনোহরণকারী সুরম্য কানন যে বালক রামতনু ও র্তাহার বয়স্তগণকে বার বার আকৃষ্ট করিত তাহা বলা নিম্প্রয়োজন। আমরা সকলেই এক কালে বালক ছিলাম ; অনেকেই পল্লীগ্রামে প্রকৃতির নিস্তব্ধ রমণীয়তার মধ্যে বদ্ধিত হইয়াছি ; সুতরাং বালক কালের সে সুখের কথা সকলেই স্মরণ করিতে পারি। গ্রামের পার্শ্বে যে কিছু রমণীয় দ্রষ্টব্য বিষয় ছিল, যে কিছু