প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:রূপান্তর-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/২০৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রূপান্তর : টীকা । অগ্রহায়ণ-ফাঙ্কন সংখ্যা প্রবাসীতে মুদ্রিত। এ স্থলে সম্পূর্ণ রূপান্তর’গুলি বা অর্থবহ বিশেধ বিশেষ কাব্যখণ্ড মাত্র সংকলিত, এজন্ত সংখ্যা ৩৫টির বেশি নহে। যে মৈথিলী পদগুলি সম্পূর্ণ সংকলন করা হইয়াছে, বর্তমান গ্রন্থে তাহাদের ক্রমিক সংখ্যা—১, ৭, ৮, ১০-১২, ১৪-২৭, ৩৫ ৷ সকল ক্ষেত্রে এগুলিরও সমস্তই রবীন্দ্রনাথ ভাষান্তরিত বা রূপান্তরিত করিয়াছেন ७]*Nन नग्न ! প্রত্যেক মৈথিলী পদের শেষে, আধারগ্রন্থে উহার যে ক্রমিক সংখ্যা তাহাই সংকলন করা হইয়াছে। বাংলা রূপাস্তরে তাহার অনুবৃত্তি। রবীন্দ্রনাথ গ্রীয়র্সন সাহেবের অর্থ কয়েক স্থলে গ্রহণ করেন নাই মনে হয়। উল্লিখিত তৃতীয় টীকায় তাহার নিদর্শন মিলিবে । সংশোধন ॥ আধারগ্রন্থের বিস্তারিত ‘সংযোজন-সংশোধন’ মিলাইয়া ( সেই সঙ্গে গ্রীয়র্সন সাহেবের স্বচ্ছন্দ ইংরাজি রূপান্তর তথা শব্দসূচী দেখিয়া ) পূর্বমুদ্রিত বহুবিধ ভ্রান্ত পাঠ ত্যাগ করা হইয়াছে। মূল পদাবলী অংশে ইহার অতিরিক্ত সংশোধন অত্যন্ত বিরল । তৃতীয় এবং চতুর্থ টীকায় যে পাঠাস্তর গ্রহণের ইঙ্গিত আছে, তাহ রবীন্দ্রনাথের অভিমতঅনুসারী । রবীন্দ্র-রচনার পাঠোদ্ধারেও বহু সংশোধনের অবকাশ ছিল, রবীন্দ্রসদনের গ্রন্থখানির সাহায্যে সে বিষয়ে বিশেষ যত্ন করা গিয়াছে। লিপ্যন্তর ॥ একই কালে মিথিলার ও বাংলার লোকপ্রচলিত উচ্চারণ সম্পর্কে সাধারণের মনে যাহাতে ভুল ধারণা না হয়, দেবনাগরী হরপের বিন্দুচিহ্নকে নির্বিচারে অসুস্বারে পরিণত করা হয় নাই । এজন্তই মংডল, সংচি, নংদী, কুংভ, বংধু, কংত, স্বংদরি বা স্বংদরী না হইয়া— মণ্ডল, সঞ্চি, ননদী (ননদী), কুম্ভ, বন্ধু, কস্ত (কাস্ত ), স্বন্দরি বা স্বন্দরী হইয়াছে । মৈথিলী পদের বানান আর সকল দিক দিয়া অবিকৃত রাখার চেষ্টা হইয়াছে ; উহ! প্রধানতই উচ্চারণ-সংগত, দেবভাষার ব্যুৎপত্তির ভয়ে ভীত নহে। সমাসবদ্ধ পদ হইলেই সংযুক্তভাবে ছাপা হইবে এ রীতি না থাকায়, বিরহ শয়ন, সর্থী বচন, রাধা কৃষ্ণ বিলাস বর্ণন, সরোবর ঘাট বাট কণ্টক তরু, কুচ জুগ কুকুম রাগ —এরূপ আধারগ্রন্থে ছিল আর বর্তমান সংকলনেও >し*。