প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:রূপান্তর-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/২৪৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গ্রন্থপরিচয় একটি विr*ष जत्रूवांम প্রাপ্তাঃ শ্রিয়: সকলকামদুঘাস্ততঃ কিং হস্তং পদং শিরসি বিদ্বিষতাং ততঃ কিম্। সম্পাদিতাঃ প্রণয়িনো বিভবৈস্ততঃ কিং কল্পং স্থিতান্তনুভূতাং তনবস্ততঃ কিম্ ॥ ভর্তৃহরি-রচিত এই শ্লোকটি: ই যে রবীন্দ্রনাথের বিশেষ প্রিয় ছিল, রবীন্দ্রসাহিত্যের পাঠকেরা তাহা জানেন। নবরত্নমালায় ( ১৩১৪ ) এই শ্লোকের প্রায় এই পাঠই বঙ্গানুবাদ-সহ মুদ্রিত। অনুবাদ এমন স্বন্দর এবং উহার ছন্দোভঙ্গীতেও এমন নৈপুণ্য রুচি ও সূক্ষ্মশব্দধ্বনির বোধ প্রকাশিত যে এটি রবীন্দ্রনাথের রচনা বলিয়া প্রতীতি হওয়া আশ্চর্য নয়। রবীন্দ্রসাহিত্যরসিক গণের বিচার-বিবেচনার জন্য সেই অনুবাদ অতঃপর সংকলন করা গেল— নাহয় অসীম পেলে সম্পদ ও তাতেই বা হল কী ? রিপুর মাথায় দিলে দুই পদ, তাতেই বা হল কী ? প্রণয়ী জুটলে দিয়ে বহু ধন, তাতেই বা হল কী ? যুগান্ত ও-কাল রাখিলে জীবন, তাতেই বা হল কী ?** ১ প্রসঙ্গবিচ্ছিন্নভাৰে দেখিলে রবীন্দ্রসাহিত্যে প্রক্ষিপ্ত বোধ হইৰে এরূপও দৃষ্টান্ত আছে, যেমন রাজা ও রানী নাটকে দেবদত্তের উক্তি ( বর্তমান গ্রন্থের পৃ ৯১, ১৪-১৫ সংখ্যা)। ২ যথা, "তুমি আমাদের পিতা" এবং “যদি ঝড়ের মেঘের মতে আমি ধাই” । ও ইহারই পূর্ব অনুবাদ ১৮৯৪ ফাত্তনের তত্ত্ববোধিনী পত্রিকায় প্রকাশিত হইয়াছিল। স্রষ্টব্য মল্লিখিত বেদমন্ত্ররসিক রবীন্দ্রনাথ", বিশ্বভারতী পত্রিক, বৈশাখ ১৩৪* , এনির্মলচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় -লিখিত “কস্মৈ দেবার হৰিষ। বিধেম’, প্রবাসী, চৈত্র, ১৩৪৯ ••• —খ্ৰীক্ষিতিমোহন সেন २२१