পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/১০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ჯ, লক্ষণ-সেন । রাজধানীতে যাওয়া হয় কি না-বিষম সমস্ত উপস্থিত। বহুজ-পত্নী পূর্ঘদিন রওনা না হওয়ার কারণ জিজ্ঞাসা করিয়াfরলেন। বস্তুজ উত্তর দেন,—“কাল প্রাতে গেলেই চলিবে।" আজিও যখন প্রভাতে ঠহার রওনা হওয়া হইল না ; বেল বাড়িয়া গেল, তবুও তিনি রওনা হইলেন না ; সঙ্গের পাইক দুই তিন বার স্মরণ করাইয়া দিল, তথাপি তিনি যখন স্বরের বাহির হইলেন না ; পত্নী বড়ই উৎকণ্ঠিত হইলেন ;– বিলম্বের কারণ জানিবার জন্ত গৃহ-মধ্যে প্রবেশ করিলেন। কিন্তু গৃহ-মধ্যে প্রবেশ করিয়াই তিনি এ কি দেখিলেন ? দেখিলেন–র্তাহার স্বামী বসুঞ্জ মহাশয় টাকাগুলি সম্মুখে রাখিয়৷ অধোবদনে বসিয়া রহিয়াছেন। টাকাগুলি কতক মাটিতে, কতক থলিতে, কতক সিন্দুকে, আর কতক তাহার হস্তে। এতদবস্থায় পতিকে চিন্তাকুলিত চিত্ত দেখিয়া, পত্নীও দারুণ চিন্তিত হইলেন। র্তাহার মনে হইল,—“বুঝি বা টাকায় কম পড়িয়াছে ; তাই তিনি ভাবনায় পড়িয়াছেন ' পত্নী জিজ্ঞাসা করিলেন—“তুমি এখনও বসিয়া কি ভাবিতেছ? টকা কি কিছু কম পড়িয়ছে!" বসুজের যেন চমক ভাঙ্গিল। ব্যস্ত-সমস্তে কহিলেন,-“ন —ম, টাকায় কম পড়ে নাই।” পত্নী।–“তবে আর বিলম্ব করিতেছ কেন ? আজ যে শেষ দিন । কখন গিয়ে আর টাকা জমা দেবে।" ধমুজ –“হা-ই ! তা--ত।--তা। এই আমি এখনই রওনা হচ্ছি।” এই বলিয়। বসুজ মহাশয় টাকাগুলি একবার বাহির