পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/১২১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ষড়বিংশ পরিচ্ছেদ । শোকে । মিথিলায় মহারাজ লক্ষ্মণ-সেনের বিজয়-পতাকা উডডীন হইলে, বন্দিগণ মুক্তি লাভ করিলেন। শ্ৰীধর মিশ্রের আত্মীয়স্বজন স্ব-ভবনে পুনঃ-প্রতিষ্ঠিত হইলেন। মিথিলাস্থিত প্রতিনিধি এবং তাহার সহচরগণ স্বদেশ-গমনের আদেশ পাইলেন। অন্যান্য বন্দিগণকে স্বদেশে প্রেরণের ব্যবস্থা হইতে লাগিল । মুক্তি পাইয়া, সকলেই আনন্দে গৃহ-প্রত্যাগমনে সম্মত হইলেন, সকলেই মহারাজ লক্ষ্মণ-সেনকে আশীৰ্ব্বাদ করিতে লাগিলেন। কিন্তু একজন ব্রাহ্মণ ও তােহর পত্নী দেশে ফিরিতে চাহিলেন না। র্তাহারা বলিলেন—“রাজা লক্ষ্মণ-সেন আমাদের প্রাণবধ করুন। মরণই এখন আমাদের একমাত্র প্রার্থনীয় ” রাজকৰ্ম্মচারিগণ সেই ব্রাহ্মণ-ব্রহ্মণীকে নানারূপ প্রবোধ দিবার চেষ্টা পাইলেন ; তাহদের মনের অভিপ্রায় জানিবার জন্য ব্যগ্রভাব প্রকাশ করিলেন ; কিন্তু ব্রাহ্মণ-ব্রাহ্মণী কোনও কথাই বলিতে চাহিলেন না ; কেবল কহিলেন,—“রাজা আমাদিগকে বধ করুন।" ব্রাহ্মণ-ব্রাহ্মণীর সেই কাতরোক্তি ক্রমে মহারাজ লক্ষণসেনের কর্ণে উপনীত হইল। মহারাঞ্জ র্তাহাদিগকে নিকটে জানাইয়। স্বয়ং তঁহাদিগের মনোভাব অবগত হইবার চেষ্টা পাইলেন। ব্রাহ্মণী কেবলই কাদিতে লাগিলেন ; ব্রাহ্মণ এক