পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/১২২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


>>b" লক্ষণ-সেন । একবার এক একট প্রশ্নের উত্তর দিলেন। এক এক বার কঁদিতে কঁদিতে বলিলেন, –“মহারাজ ! আমাদের নয়নমণি যেখানে গিয়ছে, আমরা সেখানে যাইতে চাই । আমরা প্রতিজ্ঞ করিয়াছি—তাহাকে না পাইলে আমরা গৃহে ফিরিব না।” মহারাজ লক্ষ্মণ-সেন ক্রমশঃ সকল বিষয় বুঝিতে পারিলেন, সকল কথাই জানিতে পারিলেন। ব্রাহ্মণ-ব্রাহ্মণীর নিবাস —র্তাহারই রাজ্যান্তভুক্ত রাঢ়দেশে-কেন্দুবিশ্ব গ্রামে। ব্রাহ্মণের নাম- ভোজদেব ; ব্রাহ্মণীর নাম-বামাদেবী । ব্রাহ্মণ-ব্রাহ্মণীর বৃদ্ধ বয়সে একটী পুত্রসন্তান জন্মগ্রহণ করে । বৃদ্ধ-বয়সের স্নেহের সন্তাম—সেই পুত্রটকে তাহার কখনও নয়নের অন্তরাল করিতে পারিতেন না। নবম বর্ষ পর্য্যস্ত পুত্রকে ইহারyচাখে চ'খে রাখিয়াছিলেন। নবম বর্ষ বয়সে পুত্রের উপনয়ন হয়। উপনয়নের পর দণ্ডীগৃহে অবস্থান-কালে তাহার। হঠাৎ একদিন বালককে দেখিতে পান না। পতিপী উভয়ে নিদ্রিত ছিলেন । পাশ্বে স্বতন্ত্র তৃণ-শয্যায় ব্রহ্মচারী বালক শুইয়। ছিল । নিদ্ৰ-ভঙ্গে উভয়ে জাগিয়া দেখিলেন,— বালক শয্যায় নাই । উপনয়নের পূর্ব পর্য্যন্ত, নয় বৎসর কাল, রাত্রিতে ব্রাহ্মণ ব্রাহ্মণী সন্তানকে মধ্যস্থলে রাখিয়া দুই পাশ্বে দুই জন গুইয়া থাকিতেন। দিবসেও কোনও দিন সন্তানকে তাহারা আপনাদের কাছছাড়া করিতেন না। উপনয়নের পর সন্ন্যাসের নিয়মানুসারে স্বতন্ত্ৰ শয্যার বন্দোবন্ত হইয়াছিল বটে ; কিন্তু উহাদের লক্ষ্য সৰ্ব্বদাই সন্তানের মুখের প্রতি ন্যস্ত ছিল । সে দিন কালরাত্রি আসিয়াছিল । কালনিদ্রায় তাহাদিগকে