পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/২১০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


९०७ লক্ষণ-সেন । ബ് - SAMAAASAAA SAS A SASJJJASAS SS SAAAAASA SAASAASAASAAAS A SAS SSAS রায় মহাশয় কহিলেন,—“আপনি কে ? আপনি কি , বলিতেছেন, কিছুই বুঝিতে পারিতেছি না।” "আমার পরিচয় লইবার জন্য ব্যগ্রতার কোনই আবণ্ডক নাই। পরিচয় দিবার মত আমার কিছুই নাই। নবদ্বীপের ঘাটে মধ্যে মধ্যে একটা পাগলা সন্ন্যাসী আসিতেন, শুনিয়া থাকিবেন। আমি তাহারই শিস্য। তাহারই আদেশে আমি আপনাদের এখানে আসিয়াছি । আপনাদের সকল অবস্থাই তিনি অবগত আছেন।” “পগলা সন্ন্যাসী!” রায় মহাশয় কহিলেন,—“সেই পাগল! সন্ন্যাসী । ত্ৰিলোচন বস্তুর সর্বনাশের মূলীভূত-সেই পাগলা সন্ন্যাসী !” আগস্তৃক উত্তেজিত-কণ্ঠে উত্তর দিলেন,—“হঁ-হুঁ! ত্রিলোচনের প্রাণ রক্ষাকৰ্ত্ত সেই মহাপুরুষ ! তিনি না অনুগ্রহ করিলে ত্ৰিলোচনের প্রাণদও কেহই স্থগিত করিতে পারিত না s এই বলিয়া আগন্তুক আপন হস্তস্থিত একটী শিকড়ের প্রতি লক্ষ্য করিয়া কহিলেন,–“মহাপুরুষ এই ঔষধ প্রদান করিয়াছেন; এই ঔষধের ঘ্রাণ গ্রহণ করিলেই রোগিণী সুস্থ হইবেন ।” পাগল সন্ন্যাসীর নাম গুনিয়া, রায় মহাশয়ের চিত্ত নানা চিন্তায় আন্দোলিত হইয়া উঠিল । যে পাগলা সন্ন্যাসী ত্রিলোচনের সর্বনাশের মূগীভূত, সেই পাগলা সন্ন্যাসীই তাহার প্রাণবুক্ষ করিয়াছে !—এ সংবাদ সহরময় রাষ্ট হইয়াছিল। রায় মহাশয়ও এ সংবাদ শুনিয়াছিলেন। সুতরাং সন্ন্যাসীর প্রতি রোষের সঞ্চার হইলেও আপনা-আপনিই সে রোম্ব অপনীত হইয়াছিল। আগন্তুকের বাক্যে তিনি একটু অপ্রতিত হইলেন। .