পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/২৭৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


२१8 ' লক্ষণ-সেন । দেশ-পৰ্য্যটকগণ সাধারণতঃ তীর্থযাত্রী বলিয়া পরিচয় দিমু| থাকেন। কিন্তু বাদসহ মিথ্য ভাণ করিতে ঘৃণা বোধ করেন। তিনি বলেন,—“আমি বিধৰ্ম্মী ; নবদ্বীপ-রাজ্যে হিন্দু ভিন্ন অন্তের প্রবেশাধিকার নাই । সুতরাং মহারাজাধিরাজের অনুমতি ভিন্ন আমি সে রাজ্যে গমন করিতে পারি না । তাই তিনি মহারাঞ্জের নিকট এই আবেদন-পত্র প্রেরণ করিয়াছেন। মহারাজ করুণা-প্রকাশে তাহাকে এদেশে প্রবেশের অনুমতি প্রদান করিলে আমারও মুখ রক্ষা হয়, বাদসাহও কৃতকৃতাৰ্থ হন।" মন্ত্রী রঘুদেব সেই পত্ৰখানি পাঠ করিয়া শুনাইলেন। মহারাজের কোনরূপ মন্তৰ্য-প্রকাশের পূৰ্ব্বেই তিনি নিবেদন করিলেন,-“রাজন। এ রাজ্যে ভিন্ন-ধৰ্ম্মাবলম্বীর প্রবেশের বিধি নাই। হিন্দুর রাজ্যে মুসলমানের পদার্পণ হইলে, রাজ্য কলুষিত হইবে।” মহারাজ লক্ষ্মণ-সেন মনে মনে কহিলেন,-"অমাতা রঘুদেব ! তোমার কথার মৰ্ম্ম আমি অনেকক্ষণ পূৰ্ব্বেই উপলব্ধি করিয়াছি। বক্তিয়ারের উদ্যেও আমি যে না বুঝিয়াছি, তাহা নহে। কিন্তু সে রাজনৈতিক কুট-চিন্তার দিন এখন আমার অতীত হইয়াছে।" বিশ্বেশ্বর কহিলেন,—“বাদসহ আতিথ্য-প্রার্থী। অতিথি ভিন্ন ধৰ্ম্মাবলম্বী বলিয়া কি মহারাজের কৃপালাভে বঞ্চিত হইবেন ?" রঘুদেব।–“এ রাজ্যের নিয়ম তাহাই। হিন্দুর রাজ্যে মুসলমানের প্রবেশ একান্ত দোষাবহ।" মহারাজ লক্ষ্মণ-সেন কহিলেন,-“অতিথি সৰ্ব্বথা আদরণীয়।