পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৩৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


○8 লক্ষণ-সেন ব্রাহ্মণ —“আমার অদৃষ্টের ফল আমি ভোগ করিতেছি। অপরকে কেন দণ্ডের ভাগী করব ?’ বয়স্ত এবার নির্বাক থাকিতে পারিলেন না ; অবসর বুঝিয়া উত্তর দিলেন,–“অদৃষ্টের ফল বলিয়াই যদি বুঝিয়াছেন, তবে ঠাকুর, মহারাজকে দেখে এত ঘট করে র্কাদ হচ্ছে কেন ?" বয়স্তের কথায় বাধা দিয়া মহারাজ পুনরায় ব্রাহ্মণকে জিজ্ঞাসা করিলেন,-“আপনার কি হয়েছে, আপনি বলুন। আমার বিনীত প্রার্থন, আমায় সকল কথা অকপটে বলুন।” মহারাজের মুখে বিনীত প্রার্থনার কথা শুনিয়া, শ্ৰীধর মিশ্র অমৃতপ্ত হইলেন। উদ্বেগের সহিত কহিতে লাগিলেন,— “মহারাজ ! আমার বিপদের কথা আপনাকে বলিয়া আপনাকে উদ্বিগ্ন করিবার ইচ্ছা আদেী ছিল না। কিন্তু আপনাকে দেখিয়া আমার হৃদয় উদ্বেলিত হইয় উঠে ; আমি , আত্মভাব গোপন করিতে অসমর্থ হই । তার পর, আপনার করুণাপূর্ণ বাক্য শ্রবণ করিয়া, আমার দুঃখের কথা আপনাকে বলিবার জন্য, হৃদয় স্বতঃই উন্মুখ হইয়া উঠিয়াছে।’ মহারাজ । —“আপনার কি বলিবার অাছে, বলিয়া ধান । আপনার কি বিপদ, শুনিবার জন্য বড়ই ব্যাকুল হইয়া পড়িয়াছি।” ব্রাহ্মণ ।–“সারস্বত উৎসবে মিথিলার বহু সাহিত্য-সেবী পণ্ডিতকে মহারাজ নিমন্ত্রণ করিয়ছিলেন । কিন্তু একমাত্র এই নগণ্য শ্রীধর মিশ্র ব্যতীত মিথিলার আর কোনও সাহিত্যসেবীই আপনার নিমন্ত্রণ রক্ষা করিতে আসেন নাই ।” রাজবয়স্য বাধা দিয়া কহিলেন,—“কেন – কেন আসেন নাই ? নিমন্ত্রণে কি কোনও ক্রটি হইয়াছে ?”