পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ভাগীরথীর শুভ্রদলিলে আর জলঙ্গীর নীলঙ্গলে যেন হরিহরের মিলন হইয়াছে। সে কি আনন্দময় স্থান ! স্রোতস্বিনীর কলকল্পোলে আনন্দের তান উঠিয়াছে। তীরস্থিত দেবমন্দির-সমূহের শঙ্খ-ঘণ্টা-নিনাদে আনন্দের উচ্ছাস বহিয়াছে। আবার প্রভাতে ব্ৰহ্ম-মুহূর্তে ব্রাহ্মণগণের বেদগানে জলস্থল-মরুদ্ব্যোম যখন আনন্দে মুখরিত হইয় উঠে, অথবা সন্ধ্যার দীপাবলীতে যখন আনন্দের অযুতরশ্মি বিকশিত হয়, তখন সাধক ভক্ত গদগদ-কণ্ঠে বলিয়া থাকেন,—‘নবদ্বীপ ! তুমিই মৰ্ত্তোর অমরাপুরী ! যদি মৰ্ব্যের অমরাপুরীই না হইবে,তবে লবদ্বীপের ভাগীরথীজলঙ্গীর এই পুণ্যময় পবিত্র সঙ্গমস্থলে আজ শ্রত মুমুকু জনগণের সমাগম হইবে কেন ? ভারতে কত রাজধানী আছে, কত নগরনগরী আছে, কত সুধাধবলিত অট্টালিকা-পরিপূর্ণ জনপদ আছে; কোথাও কি এমন আনন্দের স্থান নাই!—তাই বঙ্গের নরনারী