পাতা:লক্ষণ সেন - দুর্গাদাস লাহিড়ী.pdf/৬৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৬২ লক্ষণ-সেন । ব্রাহ্মণ অগ্রসর হইলেন। কাত্যায়নী কঁদিতে কঁাদিতে পতির অনুসরণ করিলেন। আজ পতিপত্নী দুই জনেই সমুদ্রের জলে জীবন বিসর্জন দিয়া সকল উদ্বেগের অবসান ধরিবেন। দুই জনে জ্যোৎস্নালোকে সমুদ্রের পথে অগ্রসর হইতেছেন! নগ:রর সীমানা অতিক্রম করিয়া বালুকারাশির মধ্যে বেলাভূমে গিয়া উপনীত হইয়াছেন। ব্রাহ্মণ-ব্রাহ্মণী উভয়েরই সঙ্কল্প – সমুদে দেহত্যাগ। কোনদিকে দৃকপাত না করিয়া তাহারা উভয়ে অনন্যমনে সমুদ্রের দিকে অগ্রসর হইয়াছেন। বেলাভূমি নীরব নিস্তব্ধ। এখন সেখানে মনুষের সমাগম একেবারেই নাই । কিন্তু কে এ সন্ন্যাসী-ব্রাহ্মণ-ব্রাহ্মণীর গন্তব্য পথে সেই গভীর রাত্রে একাকী বসিয়া ! সন্ন্যাসী বসিয়া বসিয়া কি করিতেছেন। বেলাভূমির বালুকারাশি লইয়। এক একবার ছড়াইতেছেন, আর হো হে। করিয়! হাসিতেছেন। মাঝে মাঝে চীৎকার করিয়া ঘলিতেছেন,-“সব মাটি—সব মাটি !” সেই বিকট চীৎকার-ধ্বনি ব্রাহ্মণ-ব্রাহ্মণীর কর্ণকুহরে প্রবেশ করিল। সে কথা সহসা যেন তাহদের হৃদয়ে গিয়া আঘাত করিল। ত}হার একমনে সাগরের দিকে ধাবমান হইতেছিলেন । খাধা প্র; হইয়। থমকিয় দাড়া ইলেম । হ ড় হস্ত করিয়া সন্ন্যাসী ভঁ। হাদিগকে লক্ষ্য কঃিয়) কহিলেন,-“সব মাটি—সব মাটি !” কে এ ! কি কথা বলে ! গভীর রাত্রে সাগরতীরে বামুঞ্চার,শি লইয়া একাকী এ কি খেল খেলে ?